বাংলায় হোক কৌশলে প্রস্তুতি

প্রিয় ভর্তিচ্ছু ভাই ও বোন, তোমরা এখন জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সময় অতিবাহিত করছো। এ সময়ের সঠিক ব্যবহার ও কৌশলী প্রস্তুতিই তোমাদেরকে কাঙ্ক্ষিত বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সুযোগ তৈরি করে দিতে পারে। আর এ ভর্তি পরীক্ষায় খ ও ঘ ইউনিটের জন্য বাংলা একটি অত্যাবশ্যক বিষয়। অনেকেই বাংলাকে অবহেলা করে। কিন্তু অবহেলা করা একদমই উচিত নয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেতে অনান্য বিষয়ের মত এ বিষয়টা ও গুরুত্বপূর্ণ। এ বিষয়ে প্রস্তুতির ক্ষেত্রে বাংলা সাহিত্য ও ব্যাকরণ অংশ দুটোকেই সমান গুরুত্ব দিবে। সাহিত্যের অংশের জন্য এইচএসসির বাংলা প্রথম পত্র বোর্ড বইটা অনুসরণ করবে। এ বইয়ে যেসব গল্প, কবিতা আছে সেখান থেকেই মূলত প্রশ্ন আসে। বইয়ের প্রতিটি গল্প, প্রবন্ধ, কবিতার নাড়ি নক্ষত্র আয়ত্বে করবে। তোমরা নিশ্চয় দেখেছো আর এসব গল্প, কবিতা যিনি লেখেন সেই গল্পকার বা কবি’র পরিচিতি প্রতিটি গল্প, কবিতার শুরুতে দেয়া থাকে।

তোমরা সে অংশটুকু খুব ভালো করে পড়বে। বিগত সালের প্রশ্ন বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণত কবি, লেখক পরিচিতির বাইরে সেই লেখক, কবি সম্পর্কে প্রশ্ন আসে না বললেই চলে। তাই তোমরা এ অংশটুকু ভালো করে পড়বে। এছাড়াও কবিতা, গল্প, প্রবন্ধের শেষে শব্দার্থ ও টীকা থাকে এ অংশ থেকে ও প্রশ্ন থাকে। তাই এ অংশকেও অবহেলা করবে না। আর ব্যাকরণ অংশের প্রস্তুতির জন্য নবম দশম শ্রেণীর বোর্ড বইটি অনুসরণ করবে।

এর পাশপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রস্তুতির জন্য বাজারে প্রচলিত ভালো মানের একটা গাইড বই কিনতে পারো। আর বাংলা সাহিত্যও ব্যাকরনের কিছু বিষয় আছে যা সহজে মনে রাখা যায়না।এগুলো ছন্দে কৌশলে সহজে আয়ত্ত্ব করার জন্য ডা. এম এম মহিউদ্দীনের লেখা ‘শর্ট টেকনিক’ বইটা অনুসরণ করতে পারো।

ব্যাকরণ অংশের মুখস্তের যে বিষয়গুলো আছে সেগুলোকে বেশি জোর দিবে। কারণ এগুলোতে সহজেই ভালো নাম্বার পাওয়া যায় যেমন এক কথায় প্রকাশ, বাগধারা, পরিভাষা, সমার্থক শব্দ, বিপরীতার্থক শব্দ, প্রায় সমোচ্চারিত শব্দ, প্রবাদ-প্রবচন, অনুবাদ প্রভৃতিতে নিয়মিত চোখ বোলাতে পারো। এছাড়া সন্ধি, যুক্তবর্ণ, ধাতু পড়ার সময় খাতায় লিখে লিখে পড়বে। এতে করে তোমার পড়াটা মনে থাকবে খুব সহজে। এছাড়াও উপসর্গ, প্রকৃতি ও প্রত্যয়, সমাস, বাক্য প্রকরণ, শব্দ, ণ-ত্ব বিধান, ষ-ত্ব বিধান, বচন, কারক ও বিভক্তি, ধ্বনির পরিবর্তন বুঝে বুঝে পড়বে আর নিয়মিত অনুশীলন করবে। নিয়মিত বুঝে বুঝে পড়লে বাংলায় ভালো নাম্বার পাওয়া যায়। তাই নিয়মিত চর্চা করো। বিগত সালের প্রশ্নগুলো বিশ্নেষণ করো। বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় আসা এসব টপিকের প্রশ্নগুলো অনুশীলন করতে থাকো। তোমাদের প্রস্তুতি সুন্দর হোক। শুভ কামনা রইল।

লেখক: শিক্ষার্থী, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ