ব্র্যাকের ওয়েবিনারে বক্তারা

কারিগরি শিক্ষায় দক্ষ তরুণরাই করোনা পরবর্তীতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে

  © সংগৃহীত

ব্র্যাকের এক ওয়েবিনারে বক্তারা বলেছেন, মানসম্মত কারিগরি শিক্ষায় দক্ষ তরুণদের জন্য যুগোপযোগী কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তা রয়েছে। করোনা পরবর্তী সময়ে কারিগরি শিক্ষায় দক্ষ তরুণরাই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। ‘বিশ্ব যুব দক্ষতা দিবস’ উপলক্ষ্যে শুক্রবার (১৭ জুলাই) ‘মহামারীতে দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি’ শীর্ষক এই আলোচনার আয়োজন করা হয়।

এর আগে গত ১৫ জুলাই দিবসটি পালিত হয়। ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহর সঞ্চালনায় 'মহামারিতে দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি' শীর্ষক ওয়েবিনারে অংশ নেন প্রথম আলোর যুব কর্মসূচির প্রধান মুনির হাসান, বিডিজবসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহিম মাশরুর, সেবা এক্সওয়াইজেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আদনান ইমতিয়াজ হালিম এবং ব্র্যাকের দক্ষতা উন্নয়ন কর্মসূচির প্রধান তাসমিয়া রহমান।

আসিফ সালেহ বলেন, ‘করোনা পরবর্তী সময়ে শিক্ষা, দক্ষতা ও কর্মসংস্থান নিয়ে আমাদের নতুন করে ভাবতে হবে। প্রচলিত চাকরির বাজার সংকোচিত হলেও সেখানে নতুন ধরনের কর্মসংস্থানের অনেক সুযোগ রয়েছে।’

মুনির হাসান বলেন, ‘ভবিষ্যতে জাতির কর্মদক্ষতা ও আর্থিক সক্ষমতা বাড়াতে হলে গুণগত মানসম্পন্ন কারিগরি শিক্ষার প্রসার ঘটাতেই হবে। এটা যত তাড়াতাড়ি সবাই বুঝবে, ততই মঙ্গল।’

ফাহিম মাশরুর বলেন, ‘আমাদের গ্রামমুখী অর্থনীতির দিকে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। করোনার কারণে যেসব দক্ষরা গ্রামে ফিরে গেছে বা যারা বিদেশ থেকে দেশে চলে এসেছে সেই সব তরুণদের কর্মসংস্থানের দিকে নজর দেওয়ার সময় এসেছে।’

তাসমিয়া রহমান বলেন, ‘করোনা পরবর্তী ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত আর সেই কারণেই আমাদের তরুণদের বিশেষ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হিসেবে না গড়ে তাদের সমসাময়িক দক্ষতা অর্জনে আগ্রহী করে তুলতে হবে। করোনার প্রভাবকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে না নিয়ে এটিকে একটি সুযোগ হিসেবে বিবেচনা করতে হবে।’


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ