টাকা নিয়েও শিক্ষার্থীকে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড দেননি ইউপি সদস্য!

  © সংগৃহীত

নাটোরের লালপুরে ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী বৃষ্টি আকতার নিজের নামে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ডের জন্য ইউপি সদস্যকে টাকা দিয়েও কার্ড পাননি। গত ২৩ জুন লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মুল বানীন দ্যুতির কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছে ওইশিক্ষার্থী।

জানা যায়, লালপুর উপজেলার ৩ নং চংধুপইল ইউনিয়নের পোকন্দা ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য কামরুল ইসলাম প্রতিবন্ধী ভাতা কার্ড করে দেয়ার কথা বলে প্রায় ৩ বছর আগে শারীরিক প্রতিবন্ধী বৃষ্টি আকতারের কাছ থেকে ২ হাজার টাকা নেয়। বৃষ্টি আকতারের বাবা কাশেম মুনসী ৮ বছর আগে মারা যাওয়ায় মা মনোয়ারা বেগম গার্মেন্টে চাকরি করে সংসার পরিচালনা করে।

নানী চাইনা বেগম ও ছোট ভাই মাইনুলকে সাথে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে থেকে লেখাপড়া করছেন তিনি। টাকা নিলেও ইউপি সদস্য কামরুল ইসলাম কার্ড না করে দিয়ে ঘুরাতে থাকেন।

বৃষ্টি আক্তার জানান, চংধুপইল ইউনিয়নের পোকন্দা ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য কামরুল ইসলাম আমার প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড করে দেয়ার জন্য তিন বছর আগে দুই হাজার টাকা নেন। কিন্তু টাকা নিয়ে তিনি কার্ড না দিয়ে বিভিন্নভাবে ঘুরাচ্ছেন। কোনো উপায় না দেখে লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছি।

লিখিত অভিযোগে বৃষ্টি আক্তার বলেন, আমার বাবা অনেক আগে মারা গেছেন। আমরা খুবই গরীব। এবং আমি একজন প্রতিবন্ধী। কামরুল মেম্বর আমার থেকে ২ হাজার টাকা নিয়েছে প্রতিবন্ধী ভাতার কার্ড করে দেওয়ার জন্য। কিন্তু অনেকদিন তার পেছন পেছন ঘুরেও সে আমাকে ভাতার কার্ড করে দিচ্ছে না। শুধু নানা রকম তালবাহানা করছে।

এ ঘটনায় ইউপি সদস্য কামরুল ইসলাম টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, এটা পূর্বের একটা জের, আমি টাকা নিতে যাব কেন।

এ ব্যাপারে লালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উম্মুল বানীন দ্যুতি বলেন, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে খোঁজ খবর নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ