ফেসবুকে উত্যক্তের জেরে এক ছাত্রকে পেটালেন তিন ছাত্রী, ভিডিও ভাইরাল

  © সংগৃহীত

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মেসেঞ্জারে উত্যক্তের জেরে রাজশাহী নিউ গভর্নমেন্ট ডিগ্রি কলেজের এক ছাত্রকে চড়-থাপ্পড় দিয়েছেন তিন ছাত্রী। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। পরে ছাত্রীদের পেটানোর ওই ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাইকে আজ শনিবার অধ্যক্ষের কার্যালয়ে ডাকা হয়েছে।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার ছিল দ্বাদশ শ্রেণির পরিসংখ্যান ও ইসলামের ইতিহাস বিষয়ের নির্বাচনী পরীক্ষা। পরীক্ষার পরপরই দুপুরের দিকে মারধরের ওই ঘটনা ঘটে। পরে রাতে ওই ভিডিওটি ‘আমাদের রাজশাহী’ নামের একটি ফেসবুক পেজে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাই কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী। কলেজ কর্তৃপক্ষ বলছে, বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে হবে। এটি সহপাঠীদের অভ্যন্তরীণ বা অন্য কোনো কারণেও ঘটতে পারে।

২৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা গেছে, কলেজ মিলনায়তনের পাশে কলেজের ইউনিফরম পরা একটি ছেলেকে ইউনিফরম না পরা এক ছাত্রী চড়থাপ্পড় দিচ্ছে। আর ছেলেটা মাথা নিচু করে মার খাচ্ছে। তার সামনে কলেজের ইউনিফরম পরা আরও দুই ছাত্রী দাঁড়িয়ে ছিল। তাদের উদ্দেশে ওই ছাত্রী বলে, ‘এই, তোরাও মার। মারছিস না কেন।’ পাশ থেকে পুরুষ কণ্ঠে একজনকে শোনা যায়, ‘তোরাও মার।’ তখন ওই দুই ছাত্রীও ছেলেটাকে চড়থাপ্পড় মারতে শুরু করে। পাশ থেকে ওই ভিডিওটি ধারণ করা।

কলেজ সূত্রে জানা গেছে, যে মেয়েটি প্রথম থেকে ছেলেটিকে মারতে শুরু করে, তার নাম–পরিচয় পাওয়া গেছে। তার সঙ্গে কথাও হয়েছে। মেয়েটি দাবি করেছে, ওই ছেলেটি তাদের এক সহপাঠীকে ফেসবুক মেসেঞ্জারে বাজে কথা লিখেছে। এর আগে তাকে সতর্ক করা হয়েছে। এরপরও সে আবার লিখেছে। পরীক্ষার হল থেকে বের হওয়ার সময় সে তার সহপাঠীর গায়ে হাত দিয়েছে। ওই শিক্ষক আরও জানান, ওই মেয়েটির বিরুদ্ধে এ ঘটনার আগে অপর একটি মেয়েকে পেটানোর লিখিত অভিযোগ রয়েছে।

নিউ গভর্নমেন্ট ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ জার্জিস কাদির বলেন, শনিবার বেলা ১১টায় সবাইকে ডাকা হয়েছে। তাঁরা সবার সঙ্গে সামনাসামনি কথা বলবেন। তিনি বলেন, তাঁদের কলেজের যৌন নির্যাতনবিরোধী কমিটি রয়েছে। অভিযোগ বাক্স রয়েছে। যে মেয়েটিকে উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ শোনা যাচ্ছে, সেই মেয়েটি কলেজ কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে ওই মেয়েটিকে কেন জানাতে গেল, এটা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে। পাশ থেকে অন্য ছেলেরাও মারতে বলেছে। সেই সঙ্গে ভিডিও করেছে। সহপাঠীদের মধ্যে অনেক ব্যাপার থাকে। ছেলেটাকে ফাঁসানোর জন্য পরিকল্পিতভাবে এটা করা হয়েছে কি না, সেটাও খতিয়ে দেখা হবে। 


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ