মীর কাসেম প্রতিষ্ঠিত কলেজের তথ্য চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার লংগদু উপজেলার রাবেতা মডেল কলেজের নাম পরিবর্তনের কারণ জানতে চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্প্রতি কলেজটি জাতীয়করণের জন্য উপস্থাপন করা হলে এ বিষয়ে জানতে চান প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি কলেজের ম্যানেজমেন্টে কারা আছেন ও প্রতিষ্ঠা সন বিষয়ে জানতে চেয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত তথ্য জরুরি ভিত্তিতে পাঠানোর জন্য রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসককে চিঠি দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মুর্শিদা শারমিন স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার লংগদু উপজেলায় অবস্থিত ‘লংগদু মডেল’ কলেজ জাতীয়করণের বিষয়টি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সমীপে উপস্থাপন করা হলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিম্নবর্ণিত তথ্যাদি সদয় জানতে চেয়েছেন।’ এর নিচে তিনটি প্রশ্ন উল্লেখ করা হয়েছে। এগুলো হলো— রাবেতা মডেল কলেজের নাম কেন পরিবর্তন করা হয়েছে? ম্যানেজমেন্টে কারা আছে? প্রতিষ্ঠানটি কত সালে প্রতিষ্ঠিত?

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, ‘কলেজটি নাম পরিবর্তনের বিষয়ে শুনেছি। বর্তমানে আমি ঢাকায় অবস্থান করছি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের চিঠি বিষয়ে এখনো কিছু জানতে পারিনি। চিঠি পেলে বিস্তারিত বলতে পারবো।

জানা যায়, মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলী দূর্গম এলাকার ছাত্র-ছাত্রীদের উচ্চশিক্ষার জন্য লংগদুতে ১৯৯৬ সালে রাবেতা মডেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। দুই দশকের পুরনো প্রতিষ্ঠানটি লংগদু উপজেলার একমাত্র কলেজ। কলেজটি এমপিওভুক্ত হলেও মীর কাসেম আলী আদালত কর্তৃক মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত হওয়ার পর কলেজটিতে তেমন উন্নয়ন হয়নি। তাই ডিগ্রি চালু, অবকাঠামো উন্নয়নসহ জাতীয়করণের লক্ষ্যে কলেজ পরিচালনা কমিটি ও এলাকার নেতৃবৃন্দদের মতামতের ভিত্তিতে রাবেতা শব্দটি বাদ দিয়ে ‘লংগদু মডেল কলেজ’ নামকরণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

কলেজের নাম পরিবর্তনের আগে 

কলেজের নাম পরিবর্তনের বিষয়ে অধ্যক্ষ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস বলেন, সৌদি আরবভিত্তিক দাতা সংস্থা রাবেতা’র আর্থিক সহযোগিতায় এ কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে দেশে এ সংস্থার কার্যক্রম সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে। তাই স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করে উপজেলার নামে কলেজের নামকরণ করা হয়। ২০১৮ সালের অক্টোবরে সেনাবাহিনীর জিওসি মহোদয় এসে এর নামফলক উদ্বোধন করেন। বর্তমানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয় কলেজের ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান কমিটির সদস্য।

নাম পরিবর্তনের পর কলেজের দ্বিতল ভবনের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন

 


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ