২৫ মার্চ ২০২০, ২০:২২

স্যানিটাইজার তৈরি করে বিতরণ করল রাজশাহী সরকারি সিটি কলেজ

  © টিডিসি ফটো

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাস যখন মহামারী আকার ধারণ করছে তখন এই ভাইরাসকে মোকাবেলার জন্যও চলছে প্রাণপন চেষ্টা। বর্হির্বিশ্বে করোনা এখন শুধু মরণঘাতী হিসেবেই পরিচিতি পেয়েছে। এমন মুহূর্তে বাংলাদেশে করোনা রোগী শনাক্তের পূর্ব ও পরে এর মোকাবেলার জন্য নিম্ন শ্রেণি থেকে শুরু করে উচ্চ শ্রেণি সকল পর্যায়ে তৈরি করা হয়েছে সচেতনতা, পাশাপাশি চিকিৎসা ব্যবস্থা করা হয়েছে জোরদার।

করোনা মোকাবেলার অংশ হিসেবে যখন দেশের সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি বিভিন্ন সংস্থা মাস্ক বিতরণ, হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরি এবং তা বিতরণের উদ্যোগ নিচ্ছে, তখন থেমে নেই বিভাগীয় শহরগুলোর সরকারি কলেজের রসায়ন ল্যাবগুলোও। এমনিভাবে শিক্ষানগরী খ্যাত রাজশাহী শহরের অন্যতম রাজশাহী সরকারি সিটি কলেজের রসায়ন বিভাগের উদ্যোগে তৈরি করা হয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার।

কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. সানাউল্লাহ শেখ এর সার্বিক সহযোগিতা ও রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপকদের উদ্যোগে ২০০ এর বেশি স্যানটাইজার তৈরি করা হয়। এটি তৈরিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) অনুমোদিত প্রস্তুতপ্রণালী ব্যবহার করা হয়েছে। এসব স্যানিটাইজার তৈরির উপাদানসমূহ হচ্ছে-আইসোপ্রোপানল, গ্লিসারল হাইড্রোজেন-পারক্সাইড, যা জীবনুনাশক হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

স্যানিটাইজার তৈরির পর আজ দুপুরে সিটি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. সানাউল্লাহ শেখ, রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. আকতারুল ইসলাম এবং সহযোগী অধ্যাপক মো জাকারিয়া ইসলাম তালুকদারের নেতৃত্বে প্রায় ১ হাজার ১০০ মাস্ক এবং দুই শতাধিক স্যানিটাইজার কলেজের কর্মকর্তা কর্মচারীসহ, নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে সাধারণ জনগনের পাশাপাশি রিক্সা, অটোরিকশার চালক যাদের প্রতিনিয়ত হাত ধোঁয়ার ব্যবস্থা থাকছে না তাদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও সাধারণ জনগণের সাথে হতদরিদ্রদের মধ্যেও যাদের দ্বারা করোনা ভাইরাস খুব সহজেই ছড়াতে পারে এমন ব্যক্তিদের মাঝে এ স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়।

এমন মহতী উদ্যোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে রাজশাহী সরকারি সিটি কলেজের রসায়ন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো.জাকারিয়া ইসলাম তালুকদার দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, আমরা করোনা মোকাবেলার অংশ হিসেবে অধ্যক্ষ স্যারের সহতায় এসব হান্ড স্যানিটাইজার তৈরি করেছি। এরপর এসব শহরের রিক্সা ও অটোরিকশা চালকদের মাঝে বিতরণ করা হয়, কারণ তাদের সবসময় হাত ধোয়ার ব্যবস্থা থাকছে না, করোনা প্রতিরোধে হাত ধোয়া অবশ্যই জরুরি।

তিনি বলেন, দোকানে প্রয়োজনীয় রাসায়নিক দ্রব্য সামগ্রী পাওয়া যাচ্ছে না, বেশি পরিমাণে পাওয়া গেলে আমরা সংখ্যাটাও বাড়াতে পারতাম। তবে অবশ্যই সরকারের পাশাপাশি আমাদের এই ছোট প্রচেষ্টা করোনা মোকাবেলায় ভূমিকা রাখবে বলে মনে করি।