বিদ্যমান নীতিমালায় শিক্ষক নিয়োগ দিলে আন্দোলন

বিদ্যমান নীতিমালায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) আর কেউ শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেলে উপাচার্যকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়’ ব্যানারে কয়েকজন শিক্ষক শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ সিনেট ভবনের সামনে মানববন্ধন করে এ ঘোষণা দেন।

মানববন্ধনে ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, বর্তমানে রাবির শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালায় মেধার কোনো বালাই নেই। উপাচার্য তাঁর মেয়ে ও জামাতাকে নিয়োগ দেওয়ার জন্য উদ্দেশ্যমূলকভাবে আবেদন যোগ্যতা শিথিল করেছেন। স্নাতক পরীক্ষায় মেধা তালিকায় যাঁরা প্রথম দিকে ছিলেন তাঁদের পরিবর্তে ৬৭তম হয়েও শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন উপাচার্যের জামাতা। শিক্ষকদের মধ্যে যাঁরা এসব অন্যায় ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলছেন তাঁদেরকে বিভিন্নভাবে নাজেহাল করা হচ্ছে। এতে আমরা পিছপা হব না, বরং আন্দোলন আরো কঠোর হবে।

সুলতান-উল-ইসলাম আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে অযোগ্য একজনকে রাখা হয়েছে। তাঁর মাধ্যমে উপাচার্য তাঁর উদ্দেশ্য হাসিল করছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে কী যোগ্য লোকের অভাব যে অযোগ্যকে এমন গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখতে হবে? রেজিস্ট্রারকেও পদত্যাগ করতে হবে।'

মানববন্ধন শেষে ক্যাম্পাসে র‍্যালি করেন শিক্ষকরা। এতে আরো বক্তব্য দেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এক্রাম উল্যাহ, ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যঅপক সৈয়দ মুহাম্মদ আলী রেজা প্রমুখ।

 


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ