জাবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি ‘অগ্রহণযোগ্য ও অযৌক্তিক’: প্রশাসন

  © টিডিসি ফটো

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি ও ভর্তি পরীক্ষার হল পরিদর্শনে অবাঞ্ছিত ঘোষণাকে অগ্রহণযোগ্য ও অযৌক্তিক বলে দাবি করেছে প্রশাসন। শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কার্যালয় কর্তৃক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞ আইন উপদেষ্টাসহ বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের একাধিক জ্যেষ্ঠ আইনজীবির উদ্ধৃতি দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গণমাধ্যম বা সংবাদপত্রে প্রকাশিত সংবাদ আমলে নিয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্ত সম্ভব নয়। তদন্ত করতে হলে অভিযোগটি লিখিতভাবে করতে হবে। বিচার বিভাগীয় তদন্ত কেবলমাত্র রাষ্ট্রীয় আদেশে বিচার বিভাগের এক বা একাধিক কর্মকর্তার সমন্বয়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে হতে পারে।

বিশ্ববিদ্যালয় রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, এক্ষেত্রে রাষ্ট্রীয় আদেশ ছাড়া অন্য কেউ বিচার বিভাগের কর্মকর্তাদের আদেশ দিয়ে তদন্ত আয়োজন করতে পারে না। তবে বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশের ১২ ধারায় সুনির্দিষ্টভাবে উপাচার্যের ক্ষমতা বলে দেয়া হয়েছে কিন্তু তার বিরুদ্ধে আনিত কোন অভিযোগের বিষয়ে তার করণীয় সম্পর্কে বলা হয়নি।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবির মধ্যে দুই দফার সুষ্ঠু সমাধান হয়েছে। দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত প্রক্রিয়া নিয়ে গত ১৮ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও আন্দোলনরত ছাত্র-শিক্ষকদের মধ্যে অনুষ্ঠিত সভায় মত বিরোধ দেখা দেয়। এরপর আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের পদত্যাগ দাবি করে তাকে আসন্ন ভর্তি পরীক্ষার হল পরিদর্শনে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেন। যা অগ্রহণযোগ্য এবং অযৌক্তিক।’


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ