ভর্তি ফরমের মূল্য বৃদ্ধি ‘অর্থ ডাকাতি’ বলছে ছাত্র অধিকার পরিষদ

  © টিডিসি ফটো

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) বিগত আট বছরে ভর্তি ফরমের মূল্য ৭২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে ভর্তি ফরমের এই অতিরিক্ত মূল্য আদায়কে 'অর্থ ডাকাতি' বলে অভিহিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাকর্মীরা। ভর্তি ফরমের অতিরিক্ত মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে একথা বলেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। এসময় সেখানে উপস্থিত থেকে সংহতি প্রকাশ করেন জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের নেতা কর্মীরা।

বুধবার (২১শে আগস্ট) বেলা দেড়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা সমূহ প্রদক্ষিণ করে পুরাতন রেজিস্টার বিল্ডিং এ সমাপ্ত হয়। এসময় মিছিল পরবর্তী এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বিক্ষুব্ধরা বক্তব্য রাখেন।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ জাবি শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক জয়নাল আবেদীন শিশির অতিরিক্ত মূল্য আদায়কে ডাকাতি উল্লেখ করে বলেন, ‘মানবিকের একজন শিক্ষার্থীর বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করতে হলে ২৪০০ টাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে দিতে হচ্ছে। এভাবে প্রশাসন একজন শিক্ষার্থীর কাছে অর্থ ডাকাতি করছে। অন্যদিকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মঞ্জুরি কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী ভর্তি পরীক্ষার ফরম বিক্রি বাবদ আয়ের ৪০ শতাংশ টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন কাজের জন্য ব্যয় করছেনা। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন উদ্বৃত্ত টাকা নিজেরাই ভাগ বাটোয়ারা করে নিচ্ছে।’

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করে জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আশিকুর রহমান বলেন, ‘আমরা দেখেছি শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের থেকে জোর করে আদায় করা টাকা দিয়ে এসি গাড়িতে চলাফেরা করেন। আর শিক্ষার্থীরা ভাঙা গাড়িতে চলাচল করে। এর থেকে লজ্জা আর কি হতে পারে।’

দেখুন: ভর্তি পরীক্ষার ফি কমানোর দাবি রাবি ছাত্রদলের

জাবি শাখার আহ্বায়ক শাকিল উজ্জামান বলেন, ফরমের মূল্য বাড়ানোর ফলে ভর্তিচ্ছু দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো সংকটে পড়ে। শিক্ষকদের এই ভাগ বাটোয়ারার ফলে যেমন দরিদ্র শিক্ষার্থীদের প্রতি শোষণ হচ্ছে। অন্যদিকে শিক্ষকরা নিজেদের ভোগ বিলাসে মত্ত থাকছে ফলে শিক্ষার মান উন্নয়ন আজ সংকটাপন্ন।

উল্লেখ্য জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১১-১২ সেশনে এ, বি, সি এবং ডি ইউনিটের ভর্তি ফরমের মূল্য ছিল ৩৫০ টাকা। ক্রমান্বয়ে ২০১৫-১৬ সেশনে ৫২৫ এবং ২০১৬-১৭ সেশনে ৫৫০ টাকা তথা প্রতি বছর ফরমের মূল্য ২৫ টাকা করে বৃদ্ধি করা হলেও এবার বৃদ্ধি করা হয়েছে ৫০ টাকা। ফলে দেখা যায় বিগত ৮ বছরে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি ফরমের মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে ৭২ শতাংশ।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ