বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী অপহরণ, ৫ হাজার টাকা মুক্তিপণে ছাড়

আব্দুল্লাহ্ আল মামুন  © টিডিসি ফটো

বাড়িতে ফেরার পথে অপহরণের শিকার হওয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ্ আল মামুনকে ফিরে পেয়েছে তার পরিবার। পাঁচদিন নিখোঁজ থাকার পর গতকাল বুধবার (১২ জুন) পাঁচ হাজার টাকা মুক্তিপণ পেয়ে তাকে ছেড়ে দিয়েছে অপহরণকারীরা।

পরিবারের দাবি, মুক্তিপণ পাওয়ার পর গতকাল বুধবার রাত ১০টার দিকে সাতক্ষীরার বিনেরপোতা এলাকার বাইপাস সড়কের পাশে হাত-পা বেঁধে ফেলে যায় অপহরণকারীরা। এরপর সেখানে লোকজন জড় হলে তার পরিবার গিয়ে তাকে উদ্ধার করে।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার দুপুরে কুষ্টিয়া থেকে বাড়ি ফেরার পথে যশোর থেকে নিখোঁজ হন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-কুরআর অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ্ আল মামুন। এরপর আর কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি মামুনের।

পরে সোমবার রাত ১২টার দিকে মামুনকে ফেরত পেতে তার পরিবারের কাছে মুঠোফোনে ৪০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। এই ঘটনায় মামুনের বাবা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। পরে বিকাশের মাধ্যমে পাঁচ হাজার টাকা মুক্তিপণ দেয় তার পরিবার।

এ বিষয়ে মামুনের বাবা সাতক্ষীরা শ্যামনগর উপজেলার কাশিমাড়ি ইউনিয়নের সিদ্দিক মোল্লা জানান, পরিবারের পক্ষ থেকে পাঁচ হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে দেওয়া হয়। এরপর বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে মামুন বাড়িতে ফোন করে জানায়, সে সাতক্ষীরায় রয়েছে। পরে তাকে মোটরসাইকেলে গিয়ে তাকে বাড়িতে আনা হয়।

অপহরণের শিকার মামুন জানান, যশোর পর্যন্ত আসার পর একটি মাইক্রোবাস তাকে সাতক্ষীরায় নামিয়ে দেবে বলে প্রস্তাব দেয়। ভাড়াও বেশি দিতে হবে না বলে জানায়। তখন মামুন মাইক্রোবাসটিতে ওঠেন। গাড়িতে আরো তিনজন ছিল। যশোর ঝিকরগাছা পর্যন্ত সচেতন থাকলেও তারপর থেকে তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। এরপর চারদিন তাকে একটি ছোট ঘরের মধ্যে আটকে রাখা হয়।

এ বিষয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রতন শেখ বলেন, ‘অপহরণের শিকার হওয়ার ওই শিক্ষার্থীর ছাড়া পাওয়ার খবর পেয়েছি। জিজ্ঞাসাবাদের পর তার বর্ণনা অনুযায়ী আমরা পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’


মন্তব্য