বন্ধের মধ্যে অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি

অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি  © টিডিসি ফটো

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস আতঙ্কে বাংলাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। এ ঘোষণার প্রেক্ষিতে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি (ইডিইউ) শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসে উপস্থিতি বন্ধ করা হলেও থেমে নেই নিয়মিত ক্লাস কার্যক্রম। শিক্ষাকার্যক্রম যাতে ব্যাহত না হয়, তার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত রুটিনের সব ক্লাসই লাইভ ব্রডকাস্টিংয়ের মাধ্যমে নেওয়া হচ্ছে।

ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে প্রতিটি শিক্ষার্থী যেমন ফ্যাকাল্টির পাঠদান সরাসরি দেখতে ও শুনতে পারছে, তেমনই ক্লাসরুমের মতোই মুখে বলে বা লিখে প্রশ্ন করে এবং আলোচনার মাধ্যমে আরো গভীরভাবে বুঝে নিতে পারছে টপিকগুলো। এছাড়া ভর্তিসংক্রান্ত যাবতীয় সহযোগিতাসহ সার্বিক কার্যক্রমে সবসময়ের মতোই অনলাইন সুবিধা গ্রহণ করতে পারছেন আগ্রহীরা।

তবে ভার্চুয়াল ক্লাস নেওয়ার এ ব্যবস্থা ইডিইউতে এবারই প্রথম নয় বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান। ২০১৪-১৫ সালের হরতাল-অবরোধ ও রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় যখন শিক্ষার্থীদের ক্লাসে নিয়মিত যোগ দেয়া দুরূহ হয়ে উঠেছিলো, তখনই অনলাইনে ক্লাস কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ নেয় ইডিইউ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, দেশব্যাপী যখন রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ ছিল তখনও আমারা সরাসরি ক্লাসের পাশাপাশি ভার্চুয়াল ক্লাসের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছি। ফলে বর্তমান মহামারী পরিস্থিতিতে সরকারের ঘোষণা আসার আগেই আমরা পুরো কার্যক্রম অনলাইনে নিয়ে যাওয়ার সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করতে পেরেছি।

তিনি বলেন, করোনা আতঙ্কে দেশে শিক্ষাকার্যক্রম বন্ধ ঘোষণার পরবর্তী কার্যদিবস থেকেই অনলাইন ক্লাসের কার্যক্রম শুরু করতে সক্ষম হই। সর্বাধুনিক প্রযুক্তির সন্নিবেশ ঘটিয়ে এই ভার্চুয়াল রিয়েলিটির ব্যবস্থা করেছি যাতে শিক্ষার্থীদের ক্যাম্পাসের ক্লাসরুমের মতোই অনুভূতি দেয়া যায়।

এছাড়া, ইডিইউর বিশেষায়িত মাস্টার্স প্রোগ্রাম পাবলিক পলিসি এন্ড লিডারশীপে ক্যাম্পাসে এসে ক্লাস নেয়ার পাশাপাশি অনলাইনেও পাঠদান করছেন বিশ্বের বেশ কয়েকটি উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকগণ। গত বছরই ইডিইউতে সংযুক্ত করা হয় ইন্টারনেটভিত্তিক প্লেজারিজম ডিটেকশন সফটওয়্যার ‘টার্নইটইন’। এর মাধ্যমে যাবতীয় এসাইনমেন্ট ও গবেষণাপত্র নিজ নিজ সুপারভাইজারের কাছে জমা দেয় শিক্ষার্থীরা।

অনলাইনে ক্লাসে অংশ নিচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের শিক্ষার্থী অর্চিতা চক্রবর্তী। তিনি জানান, সরকারের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের ঘোষণা যখন দেওয়া হয়, আমরা বন্ধুরা ভেবেছিলাম দীর্ঘ সময়ের জন্য একাডেমিক স্থবিরতার সম্মুখীন হতে যাচ্ছি। কিন্তু সরকারের নির্দেশনার পরপরই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ভার্চুয়াল ক্লাসের ঘোষণা দেয়ায় আমরা নিশ্চিন্ত হই।

অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিবিএর শিক্ষার্থী মুনতাসির হাসনাত বলেন, ক্লাসরুমের পাঠদানের মতোই স্বতঃস্ফূর্ত ভার্চুয়াল ক্লাসগুলো। বর্তমান দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে প্রযুক্তির নতুন নতুন দ্বার উন্মোচিত হচ্ছে আমাদের সামনে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মু. সিকান্দার খান বলেন, ইডিইউতে বিশ্বের উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মতোই অনলাইনে পাঠদানের চর্চা আমাদের দীর্ঘদিনের। বর্তমান পরিস্থিতিতে সেই চর্চা ইডিইউকে অনেক দূর এগিয়ে নিয়েছে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ