প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্লাস নিয়ে ব্রিটিশ সরকারের নতুন নিয়ম

  © ফাইল ফটো

মহামারি নভেল করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিটি ক্লাসে সর্বোচ্চ ১৫ জন করে শিক্ষার্থী একসঙ্গে উপস্থিত থাকতে পারবে। শিক্ষার্থীদের বসার জায়গার মাঝখানে দূরত্ব রাখতে হবে। সেই সঙ্গে খোলা জায়গা ব্যবহারের কথা বলেছে ব্রিটিশ সরকার।

ব্রিটেনের শিক্ষা বিভাগ (ডিএফই) জানিয়েছে, একই সাথে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মধ্যাহ্নভোজ এবং বিরতি থাকবে না। পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা বাড়ি থেকে আসতে এবং বিদ্যালয় থেকে ফিরে যাওয়ার সময় যেন জটলা না পাকায়, বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সেটাও দেখভাল করবে।

সেই সঙ্গে ছাত্র এবং ছাত্রীদের আলাদাভাবে পাঠদানের বিষয়টিও ভেবে দেখছে ব্রিটেনের শিক্ষা বিভাগ। এজন্য স্কুলের বারান্দার মাঝ বরাবর দেয়াল তুলে দুই ভাগে বিভক্ত করার কথাও ভাবা হচ্ছে। এর ফলে শিশুদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

গতকাল সোমবার বিকেলে দেশটির শিক্ষা বিভাগ এ উপদেশগুলো দিয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষকে উপদেশ দেওয়া হয়েছে, যেন নার্সারি এবং প্রাথমিকের কচিকাঁচাদের নরম খেলনা ও বিভিন্ন উপকরণ সরিয়ে ফেলা হয়। কারণ, সেগুলো নিয়ে খেলার ফলে জীবাণু সবার হাতে লেগে যাবে। আর ওইসব খেলনা জীবাণুমুক্ত করাটাও বেশ কঠিন।

বিদ্যালয়ে ছোট ছোট দলে শিশুদের ভাগ করে দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে। আর যে শিশু যে দলে থাকবে, ওই ছোট দল ছেড়ে অন্য দলের সঙ্গে সে যেন মিশতে না পারে; সেই বিষয়টিও দেখতে হবে।

সামনের মাসের শুরু থেকেই ব্রিটেনের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ক্লাসে ফিরতে পারবে বলে প্রত্যাশা সরকারের। সরকারিভাবে জানানো হয়েছে, স্কুল চালুর পরেও যেসব অভিভাবক তাদের বাচ্চাদের বাড়িতেই রাখবেন, তাদের জরিমানা করা হবে না। তবে, বাড়িতে থেকে শিক্ষার ক্ষেত্রে শিশু যেন পিছিয়ে না যায় সেই বিষয়টিও দেখতে হবে বলে জানান।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ