প্রাথমিকের প্রথম সাময়িক পরীক্ষা বাতিল নয়: ডিজি

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রথম সাময়িক পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। ডিপিই মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পরীক্ষা বিষয়ে তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চলতি মাসে অনুষ্ঠিতব্য প্রথম সাময়িক পরীক্ষা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অনেক মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে, এ পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। এটি বাতিল নয়; স্থগিত রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সুযোগ মতো এ পরীক্ষা নেয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, দেশের অন্য সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মতো প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোও ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে এ বন্ধ আরো বাড়তেও পারে। আর যদি ১৫ এপ্রিল বিদ্যালয় খোলেও ওই দিনেই পরীক্ষা শুরু করা সম্ভব নয়। কারণ পরীক্ষার যে সিলেবাস, সেটি এখনও শেষ হয়নি। এছাড়া পরীক্ষার জন্য শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কেউই প্রস্তুত নয়। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর সিলেবাসের আকার ছোট করে এনে পরবর্তী সময়ে এ পরীক্ষা নেয়া হবে।’

জানা যায়, প্রতি বছরের শুরুতেই প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষাপঞ্জি প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। সেখানে ছুটি, ক্লাস রুটিন ও পরীক্ষার সূচী নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। এ বছর করোনা পরিস্থিতির কারণে সে শিক্ষাপঞ্জি এখন বেশ এলোমেলো। করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে হত ১৬ মার্চ থেকে দেশের অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বন্ধ হয়ে যায় প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোও। এতে করে স্থবির হয়ে পড়ে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম।

তবে গত মঙ্গলবার থেকে ‘ঘরে বসে শিখি’ শীর্ষক কর্মসূচীর মাধ্যমে প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্য সংসদ টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদান সম্প্রচার শুরু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ৭ থেকে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ‘ঘরে বসে শিখি’র ক্লাস রুটিন প্রকাশ করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)।

প্রকাশিত রুটিন অনুযায়ী, প্রতিদিন দুপুর ২ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিকের ক্লাস প্রচার হবে। প্রতিদিন একেকটি শ্রেণির জন্য একটি করে বিষয়ের পাঠদান প্রচার হবে। প্রতি ক্লাসের সময়সীমা ২০ মিনিট।

ডিপিই প্রকাশিত রুটিন সংবলিত নোটিসে বলা হয়েছে, টেলিভিশনে পাঠদানকারী শিক্ষক শ্রেণিপাঠ শেষে পাঠদানকৃত বিষয়ে বাড়ির কাজ দেবেন। শিক্ষার্থীরা প্রত্যেক বিষয়ের জন্য আলাদা খাতায় তারিখ অনুযায়ী বাড়ির কাজ সম্পন্ন করবে ও বিদ্যালয় খোলার পর সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের নিকট জমা দেবে।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ