অন্যের স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিল আ’লীগ নেতা, ভয়ে চুপ স্বামী

অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা নজরুল ইসলাম  © সংগৃহীত

এক ব্যবসায়ীর স্ত্রীকে জোড় করে তুলে নিয়ে বিয়ে করার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগ নেতা ও পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায়। অভিযুক্ত উল্লাপাড়া পৌরসভা মেয়রের নাম নজরুল ইসলাম।

প্রভাবশালী হওয়ায় ভুক্তভোগীর স্বামী রাজন আহমেদ ভয়ে মামলা তো দূরের কথা আজ পর্যন্ত কোথাও কোনো অভিযোগও করতে পারেননি। এ ঘটনায় উল্লাপাড়া উপজেলার সর্বত্র আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

জানা গেছে, কয়েক বছর আগে মেয়র নজরুল পৌর এলাকার ঝিকিড়া বন্দর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে যান। ওই অনুষ্ঠানেই রাজনের স্ত্রী ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা গুলশানারা পারভীন মেয়রের নজরে পড়েন। এরপর থেকেই মেয়র বিভিন্ন প্রলোভন দেখান গুলশানারাকে। কোনোভাবেই যখন গুলশানারা রাজি হয়নি তখন ক্ষমতার দাপট ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর প্রভাব দেখিয়ে গুলশানারাকে জোরপূর্বক উঠিয়ে নিয়ে বিয়ে করেন মেয়র।

এ বিষয়ে রাজন আহমেদ গণ মাধ্যমকে বলেন, দীর্ঘ ১৮ বছরের সংসার ভেঙে তছনছ করে দিয়েছেন মেয়র নজরুল ইসলাম। আমার স্ত্রীকে জোরপূর্বক মেয়র সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তুলে নিয়ে বিয়ে করেছেন এবং হুমকি দিয়ে বলে গেছেন, এ বিষয়ে মুখ খুললে আমাকে ও আমার সন্তানকে হত্যা করা হবে। তাদের ভয়ে আমি কোনো ব্যবস্থা নেইনি। তাদের ভয়ে আমি সন্তানকে নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস সিরাজগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট শহীদুল ইসলাম বলেন, এমন বিতর্কিত কর্মকাণ্ড সাধারণ মানুষ মেনে নিতে পারে না। তবে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ যদি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দেয় এবং তদন্তে অভিযোগটি প্রমাণিত হয় তাহলে সেই জনপ্রতিনিধিকে অপসারণ করতে পারে ‘জনপ্রতিনিধি দায়িত্ব কর্তব্য আইন’র দ্বারাই।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে উল্লাপাড়ার পৌর মেয়র নজরুল ইসলামের মুঠোফোনে কল দেয়া হলে তার নাম্বারে কল ঢোকেনি।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ