বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনী: ওয়ারেন বাফেটকে টপকিয়ে আটে মুকেশ আম্বানি

  © ফাইল ফটো

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও বিশ্বের ধনকুবেরদের সম্পদের পরিমাণ বাড়ছে। তেমনই একজন মুকেশ আম্বানি। এশিয়া ও ভারতের এক নম্বর ধনী মুকেশ এখন উঠে এসেছেন মার্কিন অর্থনৈতিক সংস্থা ব্লুমবার্গের বিলিয়নিয়ারের তালিকায় শীর্ষ আটের মধ্যে। তিনি টপকালের বিশ্বের এক সময়ের শীর্ষ ধনী ওয়ারেন বাফেটকে। তালিকায় ৯ম স্থানে রয়েছেন ওয়ারেন বাফেট।

ভারতের শীর্ষ শিল্পগোষ্ঠী রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ৬৩ বছর বয়সী মুকেশের মোট সম্পদ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৮৩০ কোটি ডলারে। একমাত্র এশীয় হিসেবে তিনি রয়েছেন বিশ্বের শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকায়। তালিকায় বাকি ৯ জনের মধ্যে ৮ জনই যুক্তরাষ্ট্রের আর বাকি একজন ফান্সের রয়েছে।

তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। দ্বিতীয় স্থানে আছেন মাইক্রোসফটের বিল গেটস। তৃতীয় স্থানে রয়েছেন ফ্রান্সের লিলিয়ানে বেটেনকোর্ট ও গ্রুপ আরনল্টের বার্নার্ড আরনল্ট। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী জাকারবার্গের অবস্থান চতুর্থ। 

রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের ৪২ শতাংশ শেয়ার রয়েছে মুকেশের হাতে। সংস্থার ডিজিটাল ইউনিট জিও প্ল্যাটফর্ম লিমিটেডে বড় বিনিয়োগ করে তিনি লাভবান হয়েছেন। সেই বিনিয়োগ কোম্পানিটিকে টার্গেটকৃত মার্চ ২০২১-এর আগেই দেনামুক্ত হতে সাহায্য করেছে বলে জানিয়েছে রিলায়েন্স।

মুকেশ এখন বাস করেন বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দামি বাড়িতে, যেটির নাম অ্যান্টিলিয়া। ভারতের মুম্বাই শহরের আলটামাউন্ট রোডে অবস্থিত এই বাড়ির দাম ২০০ কোটি ডলার, যা ভারতের ১৪ হাজার কোটি রুপির সমান। এই বাড়ির চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল আর একটি বাড়িই আছে বিশ্বে, সেটি হলো ব্রিটিশ রাজপরিবারের প্রধান প্রশাসনিক দপ্তর বাকিংহাম প্যালেস।

মুকেশ কয়েকটি বিলাসবহুল গাড়ি ব্যবহার করেন। এসব গাড়ির মধ্যে আছে দুটি বেন্টলি বেন্টাগা মার্সিডিজ মেব্যাচ, অ্যাস্টমার্টিন রেপিড, রোলসরয়েস ফ্যান্টম, ল্যান্ডরোভার ডিসকভারি, ল্যান্ডরোভার রেঞ্জ রোভার, এনডেভার, বিএমডব্লিউ ইত্যাদি। এর মধ্যে বেন্টলি বেন্টাগার দাম ৭ কোটি ৬০ লাখ রুপি।


মন্তব্য