শিক্ষালয়ে সন্ত্রাস নয়

দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সম্পর্কে প্রতিদিন যে তথ্যগুলো সংবাদ মাধ্যমে উঠে আসছে তার বেশিরভাগই নেতিবাচক। অনিয়ম, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, সংঘর্ষ ও মানষিক বিপর্যয়ের তথ্য উঠে আসছে নিত্যই। যদিও জাতি প্রত্যাশা করে যে, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ইতিবাচক কর্মকান্ডের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে পরিচিতি লাভ করবে, দেশকে এগিয়ে নেবে এবং সৎ, দক্ষ ও যোগ্য দেশপ্রেমিক নাগরিক তৈরি করবে। তবে, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যে সেই প্রত্যাশার জায়গা থেকে অনেক দহৃরে সরে গেছে তা বিশ্বাস করতে খুব বেশি কষ্ট হয় না।

গত কয়েকদিন থেকে বেশ কয়েকটি ক্যাম্পাসে অস্থিরতা বিরাজ করছে। এতে, ক্যাম্পাসগুলো কার্যত স্থবির হয়ে পড়েছে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে বৃক্ষ নিধন করে ভবন স্থাপন ও অর্থ তছরুফ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষ ও অবরোধ, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ, তিন শিক্ষককে মারধর এবং আবাসিক হলগুলো থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলে কর্মচারী নিয়োগে অনিয়ম এবং বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের এক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুরের মত ঘটনাগুলো জাতিকে বেশ অসস্তিতে ফেলেছে। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসগুলোতে অতীতেও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছিল, সেগুলো ছিল বিচ্ছিন্ন ঘটনা। কিন্তু, বর্তমানে ক্যাম্পাসগুলোতে এধরনের ঘটনা আর বিচ্ছিন্ন নয়, বরং নিত্য দিনের অংশ।

পন্ডিত নেহেরু বলেছিলেন, ‘দেশ ভালো হয়, যদি দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ভালো হয়।’ বর্তমান প্রেক্ষিতে পন্ডিত নেহেরুর এই উক্তির বিস্তর মিল আমরা লক্ষ্য করছি। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো তাদের উদ্দেশ্য থেকে অনেক দূরে সরে গেছে। যার প্রভাব পড়েছে গোটা দেশের পুরো আর্থ সামাজিক ক্ষেত্রে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো কেবল পাঠদান বা পড়াশুনার জায়গা নয়, বরং নতুন জ্ঞান ও চিন্তা সৃষ্টির উর্বর ক্ষেত্র। একটি জাতির নতুন জ্ঞানের বা ধারণার সৃষ্টি করে তার বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। শিক্ষক তার শিক্ষার্থীদের এসব বিষয়ে পরিপূর্ণ ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেন। এর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে অনহৃকুল পরিবেশ নিশ্চিত করা দরকার, যাতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা জ্ঞানের নেশায় ছুটতে থকেন।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এই ধারণা অচল। এর পরিবর্তে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা দলপূজায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। দলীয় স্বার্থ রক্ষায় নিজের দায়িত্ব, কর্তব্য ও নীতি-নৈতিকতাকে বিসর্জন দিচ্ছেন। ক্যাম্পাসগুলোকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোও তাদের পছন্দের বা অনুগত লোকদের বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার দায়িত্ব দিচ্ছে। সব কিছু মিলিয়ে হ-য-ব-র-ল অবস্থা হয়েছে। এখন ক্যাম্পাসগুলোতে পড়াশুনার চেয়ে প্রত্যক্ষ রাজনীতির চর্চা বেশি হচ্ছে। শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষার্থী সবাই রাজনীতি করছে। এতে, শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে গোটা জাতি। নোবিপ্রবির আবাসিক হল থেকে যে পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে তাতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রতি ইতিবাচক ধারণা রাখা দায়! কারণ উপর মহলের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠােষকতা ছাড়া এসব কাজ কোনোভাবেই সম্ভব হতে পারে না। শুধু নোবিপ্রবি কেন, বাংলাদেশের সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আবাসিক হলগুলোতে তল্লাসি চালানো হলে অধিকাংশ হলেই কম বেশি অস্ত্র মিলবে। কারণ একটাই, তা হলো অতি রাজনীতি। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এই অতি রাজনীতির চর্চা ত্রক্রমেই অস্থিরতা বাড়াচ্ছে। ত্রক্রমেই অনিরাপদ হচ্ছে সবচেয়ে নিরাপদ হওয়ার কথা যে ক্যাম্পাসগুলো।

এই অবস্থায় বিশ্ববিদ্যায়গুলো থেকে যেমন দক্ষ জনশক্তি তৈরি হবে না ঠিক তেমনি নৈতিকতা সম্পন্ন মানুষও তৈরি হবে না। যারা ক্যাম্পাসেই অস্ত্র হাতে নিয়েছে, দলাবাজি-টেন্ডারবাজি করছে, ভিন্নমতকে সহ্য করার সামান্য ধৈর্য্যটুকুই যারা হারিয়ে ফেলেছেন তারা ভবিষ্যতে দেশকে কি দেবেন? কিন্তু বাস্তবতা হলো- এদেশের দায়িত্ব তো বাহিরের কেউ এসে নেবেন না। আজ যারা ক্যাম্পাসগুলোতে রাজনীতির নামে অপরাজনীতির চর্চা করছেন তারাই আগামী দিনে দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নেবে। এবার ভাবুন কি হবে? দেশ কোথায় যাবে? সময় থাকতেই পাগলা ঘোরার লাগাম টেনে ধরা দরকার। শুধু ক্ষমতার কথা চিন্তা করে একটি প্রজন্মকে ধ্বংস করে দিলে এর অভিশাপ থেকে কারও দায়মুক্তি মেলার সুযোগ নেই। সুবোধ জাগ্রত করুন। বিশ্বদ্যিালয়গুলো সন্ত্রাসমুক্ত করে জ্ঞানচর্চার পরিবেশ নিশ্চিত করুন।

লেখকঃ সাংবাদিক

 


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ