Thedailycampus

করোনার ভয়ে দুর্ঘটনায় আহত শিক্ষার্থীকে ফিরিয়ে দিয়েছে পাঁচ হাসপাতাল

জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট হওয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে চিকিৎসা নিতে গিয়ে তীব্র ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে। দূর্ঘটনার ফলে হওয়া জ্বর এবং শ্বাসকষ্টকেই করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ভেবে চিকিৎসা প্রদান করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ রাজধানীর বেশ কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতাল। খায়রুল ইসলাম নামের ওই শিক্ষার্থী বর্তমানে মহাখালী ইউনিভার্সাল মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিনি বশেমুরবিপ্রবির বাংলা বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

আহত শিক্ষার্থীর ফুফু মোসাঃ হাসনা আক্তার দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, ‘‘গত ২৩ মার্চ সড়ক দূর্ঘটনায় পা এবং মাথায় আঘাত পাওয়ার পর খায়রুলকে কুমিল্লার মুন হাসপাতালে ভর্তি করি। কিন্তু ২৫ তারিখে তার অবস্থার অবনতি হয় এবং শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। এসময় ডাক্তাররা বলেন তার লক্ষনসমূহ করোনা ভাইরাসের এবং তাকে আইসিইউতে নিতে হবে আর এরপরই শুরু হয় আমাদের তীব্র ভোগান্তি।’’

হাসনা বেগম অভিযোগ করেন করোনার লক্ষণ রয়েছে বলার পরপরই তাদের সাথে দুর্ব্যবহার শুরু করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তিনি বলেন, ‘‘মুন হাসপাতালে আইসিইউ না থাকায় আমাদের ঢাকায় আসতে বলা হয়। কিন্তু হাসপাতালের বেড থেকে এম্বুলেন্সে তুলতে প্রয়োজনীয় সহায়তাটুকুও কেউ করতে রাজি হচ্ছিলোনা। সকলেই দুর্ব্যবহার করছিলো।’’

এসময় হাসনা আক্তার আরো বলেন, ‘‘চিকিৎসকরা প্রেসক্রিপশনে উল্লেখ করে দিয়েছিলেন রোগীর করোনা ভাইরাসের লক্ষণ রয়েছে আর এটা দেখে কোনো হাসপাতাল আমাদের রোগীকে ভর্তি নিতে চাচ্ছিলোনা। ফলে এই মুমূর্ষু অবস্থা নিয়েই আমাদের একের পর এক হাসপাতালে ছুটে বেড়াতে হচ্ছিলো। অবশেষে ৫ থেকে ৬ টি হাসপাতাল ঘুরে অনেক ধরনের পরীক্ষার পর মহাখালীর হাসপাতালে রোগীকে ভর্তি করার সুযোগ পাই। এসময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এটিও নিশ্চিত হয় যে খায়রুল করোনা আক্রান্ত নয়।’’

এদিকে ছোটোবেলায় বাবাকে হারানো খায়রুলের চিকিৎসা চালাতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে তার পরিবারকে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনসহ সকলের সহযেগিতা কামনা করে হাসনা আক্তার দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, ‘‘ছোটোবেলাতেই বাবাকে হারানো খায়রুল চাচাদের কাছেই বড় হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে তার জীবন-মরণ সংকট তৈরি হয়েছে। আইসিইউতে প্রতি ১২ ঘন্টা পরপর ৪০,০০০ টাকা বিল প্রদান করতে হচ্ছে। এমতাবস্থায় যদি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনসহ সকলে আমাদের পাশে দাড়াতো তাহলে খুব উপকৃত হতাম।’’