মুজিববর্ষ উপলক্ষে এরদোয়ানকে সফরের আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর

মুজিববর্ষ উপলক্ষে এরদোয়ানকে সফরের আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানকে বাংলাদেশ সফরে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মুজিববর্ষ উপলক্ষে তাকে বাংলাদেশে আমন্ত্রণ জানানো হয়। সোমবার তাকে এ আমন্ত্রণ জানান প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে তুরস্কের আঙ্কারা মিশনের বাংলাদেশ চ্যান্সারি কমপ্লেক্স উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ ভবন উদ্বোধন করেন। চান্সারি ভবন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যোগ দেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন ও তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসগলু।

তুরস্কের আঙ্কারার বাংলাদেশ মিশন জানায়, আঙ্কারার বাংলাদেশ দূতাবাসের নিজস্ব ভবন নির্মাণে বরাদ্দ ছিল ৪৫ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। তবে ভবনটি নির্মাণে ২ কোটি ২৬ লাখ টাকা কম ব্যয় হয়েছে। ওই টাকা বাংলাদেশ সরকারের কোষাগারে ফেরত দেওয়া হয়েছে।

সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা শুধু একটি সমৃদ্ধ বাংলাদেশেরই স্বপ্ন দেখেননি। তাঁর স্বপ্ন ছিল একটি ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও সংঘাতমুক্ত বিশ্ব।’ ‘তিনি (বঙ্গবন্ধু) মানব কল্যাণে বিশ্বব্যাপী শান্তি ও নিরাপত্তার ওপর জোর দিয়েছিলেন। তাঁর নীতি- সবার সাথে বন্ধুত্ব, কারো প্রতি শত্রুতা নয়-আমাদের পররাষ্ট্রনীতির ভিত্তি।’

বিশ্বব্যাপী বর্তমান করোনাভাইরাস মহামারী সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে বিশ্বজুড়ে বেশিরভাগ দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা এবং অর্থনীতি বিপর্যস্ত হওয়ায় বিশ্ব একটি কঠিন সময় পার করছে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশে আমরা সফলভাবে এ ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছি। একই সাথে আমাদের সময়োপযোগী ও যথাযথ ব্যবস্থা এবং প্রণোদনা প্যাকেজগুলোও এ মারাত্মক রোগের বিপর্যয়কর প্রভাব হ্রাস করতে সক্ষম হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার এ পর্যন্ত দেশের জিডিপির ৪ দশশিক ০৩ শতাংশ সমতুল্য ১৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলার মূল্যের একগুচ্ছ কোভিড -১৯ পুনরুদ্ধার প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। শেখ হাসিনা মারাত্মক মহামারী মোকাবেলায় সাফল্যের জন্য তুর্কি নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে এর চিকিৎসা সরবরাহ প্রেরণের উদ্যোগেরও আমিও প্রশংসা করি।’

বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতি হিসাবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মহামারীজনিত কারণে প্রাথমিকভাবে এক-দু’মাস কিছুটা মন্থরতা দেখানোর পরে জুলাই থেকে দেশের রফতানি ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে।

তিনি বলেন, ‘দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এখন রেকর্ড ৩৯.৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। আমরা এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তীর্ণ হওয়ার সঠিক পথে রয়েছি।’


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ