শিক্ষার্থীদের সনদ-মালামাল ফেলে দেওয়ার প্রতিবাদে রাজধানীতে বিক্ষোভ

  © টিডিসি ফটো

করোনাভাইরাসের ছুটিতে বাড়ির ভাড়া বাকি থাকায় শিক্ষার্থীদের শিক্ষাসনদ ও মালামাল ডাস্টবিনে ফেলে দেওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হয়েছে। আজ শনিবার সকালে ‘মেস ভাড়া মওকুফ আন্দোলন’র উদ্যোগে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ কর্মসূচি পালিত হয়।

বিক্ষোভে ‘মেস ভাড়া মওকুফ আন্দোলন’র পক্ষ থেকে ৩ দফা দাবি জানানো হয়েছে। এ কর্মসূচিতে ইডেন কলেজের শিক্ষার্থী সায়মা আফরোজের সভাপতিত্বে হাসিব মামুন, শাহিনুর সুমি, জয়মা মুনমুনসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, গত ১৮ মার্চ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছে সারাদেশে প্রায় ৫০ লক্ষ মেসে থাকা শিক্ষার্থী। যার মধ্যে ৫-৭ লক্ষ শিক্ষার্থী ঢাকায় মেস, সাবলেট, ফ্ল্যাট ভাড়া করে থাকে। এরা সবাই সরকারি কলেজ, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

তারা বলেন, এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পর্যাপ্ত আবাসন ব্যবস্থা না থাকার কারণে মেস, সাবলেট, ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে থাকতে হয়। যার খরচ শিক্ষার্থীরা টিউশন করে পার্ট টাইম জব করে বহন করে। করোনাকালীন সময়ে টিউশনি বা কোন ধরণের জব না থাকায় শিক্ষার্থীরা অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে। মানবিক দিক বিবেচনায় আমরা দাবি করেছিলাম সারাদেশের শিক্ষার্থীদের মেস ভাড়ার বিষয়ে হয়রানি বন্ধ ও মেস ভাড়া মওকুফে রাষ্ট্রীয় প্রজ্ঞাপন জারি করা হোক।

কিন্তু দেখলাম রাষ্ট্রীয়ভাবে উদ্যোগ তো নেওয়াই হলো না বরং শিক্ষার্থীদের বিনা নোটিশে বাসা থেকে বের করে দেয়া হচ্ছে, মামলা করার হুমকি দেয়া হচ্ছে, তাদের জিনিসপত্র, সার্টিফিকেট ভাগাড়ে ফেলে দেয়া হচ্ছে। আমরা এসের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

তাদের দাবিগুলো হলো-

১) সার্টিফিকেট-মালপত্র ফেলে দেয়া শিক্ষার্থীদের ক্ষতিপূরণ দাও।
২) মেস মালিক দ্বারা ছাত্রদের হয়রানি বন্ধ কর।
৩) মেস ভাড়া মওকুফে রাষ্ট্রীয় প্রজ্ঞাপন জারি কর।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ