করোনাভাইরাস: ঝুঁকিতে ১০ লাখ রোহিঙ্গা

  © আল জাজিরা

বাংলাদেশের কক্সবাজারের সীমান্তে বসবাসকারী প্রায় দশ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছে বলে সর্তক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, শিবিরগুলোর করুণ পরিস্থিতি, যেখানে প্রায় রোহিঙ্গা মুসলমানরা নিকটবর্তী সীমান্ত পেরিয়ে মিয়ানমারের সামরিক ক্র্যাকডাউন থেকে বাঁচতে ২০১৭ সালে এসেছিল, যে কোনও রোগের বিস্তারের জন্য সম্ভাবনাময়।

বাংলাদেশের সীমান্তের প্রধান (মেডিসিনস সানস ফ্রন্টিয়ার্স, বা এমএসএফ) পল ব্রোকম্যান বলেছেন, ‘শিবিরগুলিতে সামাজিক দূরত্ব কার্যত অসম্ভব’। তিনি এএফপি নিউজ এজেন্সি বলেছেন, ‘চ্যালেঞ্জের মাত্রা বিশাল’।

বাংলাদেশ কেবল মুষ্ঠিমেয় করোনাভাইরাসের মৃত্যুর খবর পেয়েছে এবং ৫০টিরও কম আক্রান্ত বলে জনগণ ও বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন যে আরও অনেক কিছু রয়েছে।

রোহিঙ্গারা এই রোগ সম্পর্কে খুব কমই জানেন। কারণ সরকার শরণার্থীদের দমন করার জন্য গত বছরের শেষের দিকে তাদের বেশিরভাগ ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ করে দিয়েছে।

রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের নেতা মোহাম্মদ জুবায়ের বলেছেন, ‘আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন। ভাইরাসটি এখানে পৌঁছে গেলে তা দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়বে।’

‘প্রচুর সহায়তা এবং স্থানীয় কমিউনিটি কর্মীরা প্রতিদিন ক্যাম্পগুলিতে প্রবেশ করেন। কিছু প্রবাসী রোহিঙ্গা সাম্প্রতিক দিনগুলিতে ফিরে এসেছেন। তারা ভাইরাসটি বহন করতে পারে’-তিনি বলেছিলেন।

শিবিরের বাসিন্দা লোকমান হাকিম (৫০) শিবিরগুলোতে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা না থাকায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। হাকিম বলেন, ‘আমরা সাবান পেয়েছি এবং আমাদের হাত ধোয়াতে বলা হয়েছে। শুধু এতটুকুই।’

সূত্র: আল জাজিরা


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ