প্রথা ভেঙে যৌনকর্মীর জানাজা পড়ালেন মসজিদের ইমাম

প্রয়াত যৌনকর্মী হামিদা বেগমের জানাজা  © সংগৃহীত

রাজবাড়ী গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় প্রায় দুই থেকে আড়াই হাজার বাসিন্দার বসবাস করেন। কিন্তু যৌনকর্মী হওয়ায় মৃত্যুর পর ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী তাদের জানাজা বা দাফন ছাড়াই মরদেহ নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হতো অথবা মাটিচাপা দেয়া হতো। দীর্ঘদিনের প্রাচীন সেই প্রথা ভেঙে চলতি মাসের ২ ফেব্রুয়ারি রবিবার রাতে দৌলতদিয়া পতিতাপল্লীর প্রবীণ যৌনকর্মী হামিদা বেগমের নামাজে জানাজা শেষে দাফন করা হয়।

প্রথমবারের মতো এমন উদ্যোগ নেওয়ায় স্থানীয়ভাবে বিষয়টি বেশ প্রশংসা পায়। এর পেছনে বিশাল অবদান রাখেন গোয়ালন্দঘাট থানার ওসি আশিকুর রহমান। সম্প্রতি গোয়ালন্দ ঘাট থানায় যোগ দেন ওসি আশিকুর রহমান।

তিনি বলেন, ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী সবারই ধর্মীয় বিধান অনুসরণ করা উচিত। আমরা যতই পাপী হই না কেন, বিচার করার মালিক একজন (আল্লাহ)। সে দৃষ্টিকোণ থেকে এবং মুসলমান হিসেবে নিজ দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে ওই যৌনকর্মীর নামাজে জানাজার ব্যবস্থা করি। আগামীতে এ রেওয়াজ অব্যাহত থাকবে।

ওসি আশিকুর বলেন, আগে কোনো যৌনকর্মীর মৃত্যু হলে অমানবিকভাবে নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হতো বা মাটিচাপা দেয়া হতো। এটা তো কোনো ধর্মে নেই। তবে কেন ওটা করা হতো? এছাড়া যৌনকর্মীদের মৃত্যু হলে কোনো মৌলভী জানাজা পড়াতে রাজি হতেন না। কিন্তু ধর্মে তো এটাও নেই যে, পাপী ব্যক্তিদের জানাজা পড়ানো যাবে না। এ বিষয়ে মৌলভীদের কাছে সুনির্দিষ্ট মাসালা জানতে চাইলে তিনি অনেকটা বাধ্য হয়েই জানাজা পড়াতে রাজি হন। ওই দিন রাতেই জানাজা নামাজ পড়ানো হয়। কাজটি সফলভাবে করতে পেরে নিজেকে অনেক ভাগ্যবান মনে করছি।

প্রয়াত যৌনকর্মী হামিদা বেগমের জানাজায় হাজির ছিলেন প্রায় দুশ মানুষ। আর চেহলামের দাওয়াতে সাড়া দিয়েছিলেন চারশোরও বেশি লোক। যৌনকর্মীদের মৃত্যু হলে তাদের জানাজা পড়াতে মৌলভিরা রাজী হননা। সাধারণত মৃত যৌনকর্মীদের গোপনে কবর দেয়া হয়, অথবা মৃতদেহ নদীতে ভাসিয়ে দেওযা হয়। হামিদা বেগমের জানাজা পড়াতে ইমামকে রাজী করাতে ভূমিকা রেখেছিলেন স্থানীয় পুলিশ প্রধান আশিকুর রহমান।

চলতি মাসের ২ ফেব্রুয়ারি রাতে দৌলতদিয়া পল্লীর ওই নারীর নামাজে জানাজা সম্পন্নের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো কোনো যৌনকর্মীর দাফন কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। এ বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন সম্প্রতি গোয়ালন্দ ঘাট থানায় যোগ দেয়া ওসি আশিকুর রহমান।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল জলিল ফকীর জানান, অতীতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লীর বাসিন্দা কেউ মারা গেলে জানাজা হতো না। আসল কথা হলো, কোনো মৌলভী জানাজা নামাজ পড়াতে রাজিই হতেন না। তাই বাধ্য হয়ে মৃত ব্যক্তিকে মাটিচাপা দেয়া হতো। গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি সাহেব উদ্যোগ নেয়ায় প্রথমবারের মতো কোনো যৌনকর্মীর জানাজা এবং ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী দাফন করা হলো।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ