মায়ের কোলে ফিরতে চায় সুজন

বাবার সঙ্গে চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়া ইউনিয়নের পথেরহাট বাজারে এসেছিল সুজন (৬)। দুপুর হলে ওই বাজারের একটি হোটেলে খাবার খায় বাবা-ছেলে। এরপর ছেলেকে সেখানেই রেখে চলে যাওয়ার পর এখন পর্যন্ত ফেরেননি বাবা। এ ঘটনা গত তিন দিন আগের বলে জানা গেছে।

দীর্ঘ সময় পর বাবার দেখা না পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়ে সুজন। এরপর রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ এসে সুজনকে রাউজান থানার নারী আবাস ভবনে নিয়ে যায়। এরপর তিন দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো সুজনের কোনো স্বজনের খোঁজ পাওয়া যায়নি বলে পুলিশ।

থানায় গিয়ে দেখা যায়, সুজন এক নারী কনস্টেবলদের বাসায় খেলছে। কিছুক্ষণ পরপর থানার প্রশাসনিক ভবনের কর্মকর্তাদের এ-কক্ষ ও-কক্ষ ঘুরে বেড়াচ্ছে। থানার ওসি কেপায়েত উল্লাহসহ কর্মকর্তারা সবাই তাকে আদর করছেন।  সুজনকে নতুন কাপড় কিনে দিয়েছেন নারী কনস্টেবল শামীমা আকতার।

নোয়াপাড়া পথেরহাট বাজারের ওই হোটেলে কথা বলে জানা গেছে, ৪০ থেকে ৪৫ বছর বয়সী এক ব্যক্তি সুজনসহ শুক্রবার দুপুরে হোটেলে ভাত খান। খাওয়ার বিলও পরিশোধ করেন তিনি। এরপর শিশুটিকে রেখে চলে যান। পরে আর আসেননি। সুজন জানিয়েছে, তার বাবার নাম জজ মিয়া। মায়ের নাম চম্পা। গ্রামের বাড়ি সিলেট। তার বড় দুই ভাই ও দুই বোন আছে। বাবা জজ মিয়ার সঙ্গেই সে এখানে আসে। বাবা তাকে ফেলে চলে গেছেন। সুজন বলে, সে মায়ের কাছে যেতে চায়।

রাউজান থানার উপপরিদর্শক নুর নবী বলেন, দেশের সব থানায় সুজনের বার্তা ও ছবি পাঠানো হয়েছে। কোনো স্বজনের খোঁজ এখনো পাওয়া যায়নি। তিনি বলেন, ‘আমরা সুজনকে বাবা-মায়ের কোলে তুলে দিতে কাজ করছি।’


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ