বৈরুতের বিস্ফোরণ এবং অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট

আসিফ আহমেদ মাহাদী
আসিফ আহমেদ মাহাদী  © টিডিসি ফটো

লেবাননের বৈরুতের বিস্ফোরণটির পর মনে পড়ে যায় ২য় বিশ্বযুদ্ধের সময়ের এ্যাটমিক বোম ফ্যাট বয়ের কথা। লেবাননে ঘটা বিস্ফোরণটি ফ্যাট বয়ের এক-পঞ্চমাংশের সমান শক্তিশালী। এই বিস্ফোরন দেখে আরো মনে পড়ে যায় ১৯৮৬’র এপ্রিলের ২ তারিখে ঘটে যাওয়া চেরনোবিল বিপর্যয়ের কথা, তেজস্ক্রিয়তার ফলে মানবদেহের ক্ষতির কথা।

জানা গেছে লেবাননের বৈরুতের ওই বিস্ফোরণ মহাবিস্ফোরণে রুপ নিয়েছে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের জন্যে। অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট একটি একটি সাদা স্ফটিকের শক্ত (white crystalline) এবং পানিতে অত্যন্ত দ্রবণীয়। এটি মূলত উচ্চ-নাইট্রোজেন সার হিসাবে কৃষিতে ব্যবহৃত হয়। এর অন্যান্য প্রধান ব্যবহার খনি, খনন এবং সিভিল নির্মাণে ব্যবহৃত বিস্ফোরক মিশ্রণের একটি উপাদান হিসাবে। এছাড়া এটি এএনএফওর (ANFO) প্রধান উপাদান।

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট দহনযোগ্য এবং হ্রাসকারী উপকরণগুলির সাথে প্রতিক্রিয়া করে কারণ এটি একটি শক্তিশালী অক্সিড্যান্ট। যদিও এটি মূলত সারের জন্য ব্যবহৃত হয় তবে এটি বিস্ফোরকগুলির জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে এবং বিস্ফোরক হিসাবে এর ব্যবহার অত্যন্ত উল্লেখযোগ্য।

এর একটি উদাহরণ হলো এএনএফও (ANFO) (বা এএন/এফও, অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট/জ্বালানী তেলের জন্য) যা একটি বহুল ব্যবহৃত বাল্ক শিল্প বিস্ফোরক। এর নামটি সাধারণত "আন-ফো" হিসাবে উচ্চারণ করা হয়।

এটিতে ৯৪% পোরস প্রিলড অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট রয়েছে, যা জ্বালানী সরবরাহকারী অক্সিডাইজিং এজেন্ট হিসাবে কাজ করে এবং ৬% জ্বালানি তেল। এর পাশাপাশি অ্যামেটেক্স একটি সামরিক বিস্ফোরক যা ৫১% অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট, ৪০% টিএনটি এবং ৯% আরডিএক্স সমন্বিত থাকে।

এমন আরেকটি বিস্ফোরক উপাদান হলো আমাতল। এটি টিএনটি এবং অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মিশ্রণ থেকে তৈরি একটি বিস্ফোরক উপাদান। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় অ্যাম্যাটল ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়েছিল। এটি সাধারণত বিমান, বোমা, শেলস, গভীরতা চার্জ এবং নৌ খনিগুলির মতো সামরিক অস্ত্রগুলির একটি বিস্ফোরক হিসাবে ব্যবহৃত হয়।

এছাড়া, এমন আরেকটি বিস্ফোরক উপাদান হলো অ্যামোনাল। এটি অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট এবং অ্যালুমিনিয়াম গুঁড়া দ্বারা তৈরি বিস্ফোরক। ১৯৭০ সালে উইসকনসিনের ম্যাডিসনে স্টার্লিং হল বোমা হামলা, ১৯৯৫ সালে ওকলাহোমা সিটি বোমা হামলা, ২০১১ দিল্লি বোমা, ২০১১ সালে অসলোতে বোমা হামলা এবং ২০১৩ হায়দরাবাদ বিস্ফোরণে এটি ব্যবহৃত হয়েছে।

উচ্চ ডিয়ার, লোয়ার দির, সোয়াত, চিত্রাল, জঙ্গিরা বিস্ফোরক তৈরির জন্য এই রাসায়নিকগুলি ব্যবহার করতো বলে ২০০৯ সালের নভেম্বরে পাকিস্তানের উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ (এনডাব্লুএফপি) সরকার পূর্ব মালাকান্দ বিভাগে অ্যামোনিয়াম সালফেট, অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট এবং ক্যালসিয়াম অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট সারের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল।

এছাড়া, অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট সংরক্ষণ এবং পরিচালনা করার জন্য অসংখ্য সুরক্ষা নির্দেশিকা পাওয়া যায়। এটি দাহ্য পদার্থের নিকটে সংরক্ষণ করা উচিত নয়। অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট কিছু উপাদান যেমন ক্লোরেটস, খনিজ অ্যাসিড এবং ধাতব সালফাইডগুলির সাথে বেমানান। এসব উপাদানের সাথে যোগাযোগের ফলে জোরালো বা এমনকি সহিংস পচন হতে পারে।

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের উপাদানগুলির বৃহত স্টক স্টাইলগুলি তাদের সমর্থনকারী জারণের কারণে আগুনের ঝুঁকির বড় কারণ হতে পারে। এটি এমন একটি পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে যা সহজেই বিস্ফোরণ আরও বাড়াতে পারে এবং যার বর্তমান ফলাফল হলো লেবাননের বৈরুতের বিস্ফোরণ।

সভ্যতা গড়তে অনেক সময় লাগে কিন্তু শেষ হতে এক সেকেন্ড সময় লাগে। আ্যামোনিয়াম নাইট্রেট যেমন কৃষিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখা সার উৎপাদনের অপরিহার্য ভুমিকা রাখে, তেমনি ধ্বংসযজ্ঞের ভয়ানকরুপ কম না!

লেখক: শিক্ষার্থী, এপ্লাইড কেমিস্ট্রি অ্যান্ড কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ