২৬ মার্চ ২০২০, ০৯:৩৪

দিনের ৮৬ হাজার ৪০০ সেকেন্ড কীভাবে কাটছে?

ঘরে অবরুদ্ধ। অলস সময় যেন কাটছে না। কিছুই যেন করার নেই। আমাদের এই হায় আফসোস কি সেই মানুষগুলোর আফসোসের চাইতেও বড়? যারা পৃথিবীতে ১টা সেকেন্ড ফিরে পাওয়ার জন্য প্রতি মূহুর্তে আর্তনাদ করছে!

আরবীতে একটি প্রবাদ আছে – “সময় সে তো জীবন, সুতরাং তাকে হত্যা করো না।” আর আমরা এই সময়কে আজ এত সহজে পেয়েও এর মর্ম ও নেয়ামত না বুঝে হা হুতাশ করছি!

আমাদের জীবনটা আসলে কি? আর আমাদের আঁয়ু বা হায়াতটাই বা কি? আসলে সময়ের শেকলে বাঁধা আমাদের হায়াত। যার শেকল যত বড়। তার হায়াত তত দীর্ঘ। আমাদের প্রতিদিনের হায়াতের শেকল ৮৬ হাজার ৪০০ সেকেন্ডের। অথচ এর মাত্র ১টি সেকেন্ড পাওয়ার জন্য কোটি কোটি মৃত প্রান প্রতিনিয়ত হায় আফসোস করে চলেছে। আর আমরা উল্টা এই সময়কেই কিভাবে পার করবো তার জন্য হায় আফসোস করছি!

আগেই বলেছি, আমাদের জীবনটা হল সময়ের সমষ্টি মাত্র। আল্লাহ সময়কে আমাদের জন্য মূলধন হিসেবে দিয়েছেন। এই মূলধন আমরা কিভাবে বিনিয়োগ করবো। আর কিভাবে ব্যয় করবো। তার পরিপূর্ণ হিসেব নেয়া হবে। যায় কাছে পৃথিবীর সবকিছুই আছে। কিন্তু তার ভোগ করার সময়টুকু নেই। সে-ই জানে সময়ের সামনে এই সবকিছু কতটা মূল্যহীন। সময় বা আয়ু আল্লাহর দেয়া শ্রেষ্ঠ এক নেয়ামত। আর আল্লাহ বলেন, “সেদিন তোমাদেরকে প্রতিটি নেয়ামত সম্পর্কে প্রশ্ন করা হবে।” (সূরা তাকাসুর: ৮)। কি উত্তর দিবো আমরা সেদিন? যেদিন সবাই কাঁদবে। হায় আফসোস করবে। ফেলে আসা এতটুকু সময়ের জন্য। আল্লাহ বলেন- “যখন তাদের কারো নিকট মৃত্যু উপস্থিত হয় তখন সে বলেঃ ও আমার পালনকর্তা আমাকে ফিরিয়ে দিন যেন আমি যে কাজগুলো সম্পাদন করতে পারিনি তা করতে পারি।” (সুরা মু’মিনুন : ৯৯-১০০)

যে অবসর সময়টা আজকে আমরা পেয়েছি। সেটা কিভাবে কাটাবো। তার জন্য আজকে হায় আফসোস না করি। আর আজকের এই সময়গুলোকে ফিরে পাওয়ার জন্য কালকে কেয়ামতের দিনও যেন হায় আফসোস না করি। আল্লাহ আমাদের ক্ষনিক জীবনের, ক্ষয়িষ্ণু সময়ের, মূল্য অনুধাবন করে এর সঠিক ব্যবহার করার তওফিক দান করুন।