করোনায় প্রশাসনের হয়রানির শিকার কওমি মাদ্রাসা: বেফাক

  © ফাইল ফটো

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাক) অভিযোগ করেছে, করোনা পরিস্থিতিতে কওমি মাদরাসাগুলো বন্ধ থাকায় একদিকে যেমন লেখাপড়া হচ্ছে না, অপরদিকে মাদরাসাগুলো আর্থিক অসচ্ছলতার শিকার হয়ে আছে। এ অবস্থায় সরকারি প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায় থেকে এসব মাদরাসাকে নানাবিধ প্রশ্ন করে পেরেশানি করা হচ্ছে।

আজ শনিবার বেফাকের সভা সহ-সভাপতি আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমীর সভাপতিত্বে বেফাক মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ অভিযোগ করা হয়। সভায় মাদরাসা কর্তৃপক্ষকে পেরেশানি না করে দ্বীনি প্রতিষ্ঠানগুলোকে দ্বীনি কাজ আঞ্জামে সার্বিক সহাযোগিতা করার জন্য প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানানো হয়।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, বেফাকের সহ-সভাপতি মাওলানা আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জি, মাওলানা সাজেদুর রহমান, মাওলানা নূরুল ইসলাম, মাওলানা আব্দুল হামিদ পীরসাহেব, মধুপুর, যুগ্মমহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা বাহাউদ্দিন যাকারিয়া প্রমুখ।

সভায় বলা হয়, বর্তমান নাজুক পরিস্থিতিতে আর্থিক কষ্টে থাকা শিক্ষক সমাজের প্রতি মাদরাসা কর্তৃপক্ষ যেন অনুগ্রহ পূর্বক দয়ার্দ্র আচরণ ও তাদের চাহিদা এবং সমস্যার প্রতি সদয় দৃষ্টি রাখেন। যে সকল মাদরাসার সামর্থ্য রয়েছে তারা যেন শিক্ষকদের বেতন আদায়ে বিশেষ যত্নবান হন।

সভায় ভাড়া বাড়িতে মাদরাসার কার্যক্রম পরিচালিত বাড়ির মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলা হয়, তারা তাদের বাড়িতে মাদরাসা স্থাপনের অনুমতি দিয়ে যে দ্বীনি কাজে সহায়তার মহৎ কাজ করেছেন, সে মহৎ কাজের অংশ হিসেবে বাড়ি ভাড়া ৫০% কমিয়ে বিলম্বে ভাড়া প্রদানের অনুমতি ও বাড়িতে মাদরাসা বহাল রাখা ইত্যাদি কাজের মাধ্যমে দ্বীনি ইলমের খেদমতে শামিল থাকবেন বলে বেফাক আশাবাদী।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ