আমি পদত্যাগ চাইনি: বাবুনগরী

  © টিডিসি ফটো

মজলিসে শূরার সদস্যদের নিকট দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার সহকারী পরিচালকের পদ থেকে সরাসরি পদত্যাগ বা পদত্যাগের বিষয়ে কোন প্রকারের সম্মতি প্রকাশ করেননি হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী। আজ বুধবার (১৭ জুন) রাতে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন তিনি ।

বিবৃতিতে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী সাহেব হুজুরের সভাপতিত্বে আজ হাটহাজারী মাদ্রাসার মজলিসে শূরার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই বৈঠকের শেষ পর্যায়ে কিছু বিষয় সম্পর্কে জানতে আমাকে বৈঠকে ডাকা হয়েছে। সেসব বিষয়ে আমি আমার সুস্পষ্ট বক্তব্য শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী সাহেব ও শূরার সদস্যদের সামনে উপস্থাপন করেছি। কিন্তু বৈঠকে শূরার সদস্যদের নিকট মুঈনে মোহতামীমের পদ থেকে পদত্যাগ চাওয়া বা পদত্যাগের বিষয়ে কোন ধরনের সম্মতি আমি প্রকাশ করিনি। একইসঙ্গে বৈঠকে আমাকে মুঈনে মোহতামীম এর পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার বিষয়ে শূরার সদস্যগণ আমাকে কিছুই বলেননি। বৈঠক শেষ হওয়ার অনেক পরে একজন শূরার সদস্য মুঈনে মোহতামীমের পদ থেকে আমাকে অব্যাহতির বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আমি জানতে পেরেছি, মাদ্রাসার অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে মাওলানা নোমান ফয়জীর বরাতে এবং একটি ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় মাওলানা নুরুল আমীন সাহেবের বরাতে প্রচারিত হচ্ছে যে, আমি মজলিসে শূরার সদস্যদের নিকট মুঈনে মোহতামীম বা সহকারী পরিচালকের পদ থেকে পদত্যাগের সম্মতি প্রকাশ করায় তারা আমাকে ওই পদ থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন। অথচ এ কথা ভিত্তিহীন। আমি শূরার সদস্যদের নিকট কোন পদত্যাগ চাইনি।

প্রসঙ্গত, আজ বুধবার মাদ্রাসা পরিচালনার সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম ‘মজলিশে শুরা কমিটি’ চার ঘণ্টার বৈঠক শেষে জানায়, জুনায়েদ বাবুনগরীকে হাটহাজারী মাদ্রাসার সহকারী পরিচালকের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তাঁর জায়গায় দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে মাদ্রাসার জ্যেষ্ঠ শিক্ষক শেখ আহমেদকে। তিনি হেফাজত আমির শাহ আহমদ শফীর ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন মাদ্রাসার মহাপরিচালক ও হেফাজতের আমির শাহ আহমদ শফী।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ