মাদরাসা সুপারের সঙ্গে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় ছাত্রীকে টিসি

মাদরাসা সুপার মিজানুর রহমান  © সংগৃহীত

মাদরাসা সুপারের সঙ্গে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় দশম শ্রেণির এক মাদরাসা ছাত্রীকে টিসি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর মা এ অভিযোগ করেছেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মাদ্রাসা সুপার।

এদিকে গত (৫ সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার বিকালে ওই মাদ্রাসার অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসি মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে সুপারের বিদায় চাই লেখা লিফলেট হাতে নিয়ে অনশন করে। এসময় আন্দোলনকারীরা বিনাদোষে ছাত্রীকে টিসি দেওয়া মাদরাসা সুপারের অপসারণ দাবি করেছেন।

ভুক্তভোগী মাদরাসাছাত্রী ফারজানা আক্তার উপজেলার মাঝারদিয়া ইউনিয়নের কুমারপট্টি গ্রামের লুৎফার রহমানের মেয়ে। সে মাহিরন নেছা দাখিল মাদরাসার দশম শ্রেণির ছাত্রী।

ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা লিখিত অভিযোগে বলেন, মাদরাসা সুপার আমাদের বাড়িতে বিভিন্ন সময় আসা যাওয়া করতো। শিক্ষক বলে আমরা তাকে যথেষ্ট আদর-আপ্যায়নও করতাম। এক পর্যায়ে মাদরাসা সুপার মিজানুর রহমানের এক ভাতিজা পাশ্ববর্তী ছাগলদী গ্রামের আব্দুল জলিল তালুকদারের ছেলে মো. কামাল তালুকদারের সাথে আমার মেয়ে ফারজানা আক্তারের বিয়ের প্রস্তাব দেয়। পারিবারিকভাবে আমরা মাদরাসা সুপারের মাধ্যমে বিবাহও দেই ঐ ছেলের সাথে। পরে পারিবারিকভাবে বনিবনা না হওয়ায় অল্প দিনেই বিয়ে ভেঙ্গে যায়। পরবর্তী সময়ে আমার মেয়ে আবার মাদরাসায় পড়ালেখা করতে চাইলে আমরা তাকে পুনরায় মাদরাসায় ভর্তি করি।

কিন্তু মাদরাসা সুপার আমাদের বাড়িতে আবার একদিন এসে বলে আপনার মেয়ের তো একবার বিয়ে হয়েছে এখন আর পড়ালেখা করে কি হবে। আমার সাথে বিয়ে দেন আমার গ্রামের বাড়িতে ওকে নিয়ে সংসার করবো। আমরা এবং আমার মেয়ে ফারজানা রাজি না হলে কয়েকদিন পর আমার মেয়েকে টিসি দিয়ে মাদরাসা থেকে বের করে দেয়।

মাদরাসাছাত্রী ফারজানা বলেন, তিনি আমার বাবার বয়সী কি করে তাকে বিয়ে করবো। পারিবারিকভাবে প্রস্তাব দেয়ার আগে আমাকে ব্যক্তিগত ভাবে বার বার তার সাথে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দিয়েছিল। তার প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার ক্ষমতা বলে আমাকে টিসি দিয়ে মাদরাসা থেকে বের করে দিয়েছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছে মাদরাসা সুপার মিজানুর রহমানের আগের দুটি স্ত্রী রয়েছে। তিনি মেয়ের বয়সী ছাত্রীকে বিয়ে করতে চান। আর তা না পেরে প্রতিহিংসার বশে এই কাজ করেছে। আমরা এই সুপারের অপসারণ চেয়ে বিচার দাবি করছি।

মাদরাসা সুপার মো. মিজানুর রহমান অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি তার বিবাহ দেই নাই। কারণ তার বিয়ের বয়স হয়নি। ঐ ছাত্রী ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের দাখিল পরীক্ষার জন্য রেজিস্ট্রেশন করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে আর মাদরাসায় আসেনি। আমার এক শিক্ষক না বুঝে তাকে পুনরায় ভর্তি করেছে। সে বাল্যবিবাহে আবদ্ধ হয়ে মাদরাসার নিয়ম ভঙ্গের কারণে তাকে আমি টিসি দিয়েছি। তা ছাড়া সে এখন আমাদের মাদরাসার ছাত্রী নয়।

শিক্ষার্থীদের অবস্থান

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও মাঝারদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হামিদ বলেন, ‘এর পিছনে অনেক কাহিনী আছে। যা ফোনে বলা যাবে না।’

সালথা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হাসিব সরকার বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। যদি এই ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ