ছাত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব, কুরআন স্পর্শে শপথ নেয় শিক্ষক

যশোরের অভয়নগর উপজেলায় সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে প্রেম এবং বিয়ের প্রস্তাব দেয়ায় মাদ্রাসার কারী শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান মুন্সীকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার দুপুরে আটকের পর সিদ্দিপাশা পুলিশ ক্যাম্প থেকে ওই শিক্ষককে অভয়নগর থানায় হস্তান্তর করা হয়।

আটককৃত মো. মিজানুর রহমান মুন্সী উপজেলার নাউলী গোপীনাথপুর মিলনী দাখিল মাদ্রাসার কারী শিক্ষক।

ওই ছাত্রীর চাচা মো. মোস্তাইন আকুঞ্জির লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ওই শিক্ষককে আটক করে পুলিশ।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান মুন্সী ওই ছাত্রীকে পবিত্র কোরআন শরীফ স্পর্শ করে শপথ করিয়েছেন। তাছাড়া এ বিষয়গুলো কাউকে না বলার জন্য হুমকি প্রদর্শন করেন। সোমবার দুপুরে বাড়িতে গিয়ে মাদ্রাসার ওই নাবালিকা ছাত্রী বিষয়গুলো তার মা ও চাচাকে জানায়।

ছাত্রীটির চাচা বিষয়টি শুনে ওই দিনই মাদ্রাসায় উপস্থিত হয়ে অভিযুক্ত ওই শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান মুন্সির বিচার দাবি করেন।

ওই ছাত্রীর চাচা জানান, এ সব বিষয়ের কারণে মেধাবী ছাত্রী তার ভাতিজির মানসিক অবস্থা বিপন্ন হওয়ায় মাদ্রাসায় পাঠানোও অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়টির ফয়সালা দ্রুত না হওয়ায় মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় পুলিশ ক্যাম্পে অভিযোগ দায়ের করা হয়। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে ক্যাম্প পুলিশ অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে আটক করে।

এ বিষয়ে মাদ্রাসার সুপার মাওলানা আবদুর রশিদ বলেন, তিনি অভিযোগ পেয়ে তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে শনিবার জরুরি মিটিং আহ্বান করেছেন।

তিনি আরও জানান, তদন্ত শুরু করার আগেই পুলিশ ওই শিক্ষককে আটক করেছে।

এ ব্যাপারে অভয়নগর থানার ওসি তাজুল ইসলাম বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে শিক্ষককে আটক করা হয়েছে।


মন্তব্য