উচ্চ প্রজননক্ষম ভেড়া উৎপাদনে কাজ করছে বাকৃবি

আমাদের দেশের ভেড়াগুলো ১ থেকে ৩ টি বাচ্চা দিয়ে থাকে। কিন্তু ছাগলের প্রয়োজনীয় জেনেটিক কিছু প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষনের মাধ্যমে ভেড়ার বাচ্চা প্রজননের হার বাড়ানো সম্ভব। আর উচ্চ প্রজননক্ষম ভেড়া উৎপাদনে কাজ করছি আমরা। সোমবার দুপুর ১২টায় বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) পশুপালন অনুষদীয় সম্মেলন কক্ষে মলিকুলার গবেষণার মাধ্যমে দেশীয় ভেড়ার অধিক বাচ্চা উৎপাদন বিষয়ে সেমিনারে এসব কথা বলেন প্রধান গবেষক অধ্যাপক ড. মো. সামসুল আলম ভূঁঞা।

অধ্যাপক ড. ভূঁঞা আরও বলেন, ভেড়ার বাচ্চার সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য যে জিনগুলো দায়ি, সেগুলো আমরা প্রথমে সনাক্ত করেছি। আমাদের দেশীয় ভেড়ার নমুনা রক্ত সংগ্রহ করে সেটি মলিকুলার মার্কারের সাহায্যে জিন সিকুয়েন্স করার মাধ্যমে আমরা আগেই জানতে পারবো কোন ভেড়াগুলো বেশি বাচ্চা দিবে। আর সেই ভেড়াগুলো বাছাই করে প্রজনন করালে অধিক বাচ্চা পাওয়া সম্ভব হবে যা প্রাণিজ সম্পদ উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

সেমিনারে পশুপ্রজনন ও কৌলিবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ড. অভিজিৎ সাহা অপুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. মো. জসিমউদ্দিন খান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পশুপালন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নূরুল ইসলাম, বাকৃবি রিচার্চ সিস্টেমের পরিচালক অধ্যাপক ড. এম এ এম ইয়াহিয়া খন্দকার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রকল্পের সহযোগি গবেষক অধ্যাপক ড. মো. মুনির হোসেন। এছাড়াও সেমিনারে অনুষদীয় শিক্ষক, বিএলআরআইয়ের বৈজ্ঞানিক ও ডিএলএসের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ