ভারতের ফরেন মেডিকেল গ্র্যাজুয়েট টেস্ট

বাংলাদেশের মেডিকেল থেকে পড়া ৭২ শতাংশই ফেল

  © ফাইল ফটো

বিদেশ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি গ্রহণ করেছেন এমন ভারতীয় নাগরিকদের দেশে প্র্যাকটিসের লাইসেন্স পেতে চান তাদের ফরেন মেডিকেল গ্র্যাজুয়েট এক্সামিনেশনে (এফএমজিই) পাস করতে হয়। দেশটির জাতীয় পরীক্ষা বোর্ডের (এনবিই) অধীনে নেয়া এ পরীক্ষায় প্রতি বছর গড়ে ১৫ হাজারের বেশি ভারতীয় অংশ নেয় বলে এর প্রতিবেদনে জানা গেছে।

বোর্ডের সর্বশেষ প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এফএমজিই টেস্টে অংশ নেয়া পরীক্ষার্থীদের উল্লেখযোগ্য একটি অংশই বাংলাদেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ থেকে পাস করা এবং এদের ৭২ শতাংশই এ পরীক্ষায় ফেল করেছে।

 পড়ুন: মন্ত্রীর ওয়ালে ফেইক নিউজ!

তিন থেকে চার বছর পর পর বিদেশ থেকে মেডিকেল ডিগ্রি নিয়ে আসা এফএমজিই পরীক্ষার্থীদের পারফরম্যান্স প্রতিবেদন প্রকাশ করে এনবিই। সম্প্রতি ২০১৫ থেকে ২০১৮— এই চার বছরের পারফরম্যান্স রিপোর্ট প্রকাশ করেছে বোর্ডটি।

পড়ুন: কলেজে না গিয়েও মেডিকেল ভর্তিতে দ্বিতীয় নেহা

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৫ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ৬১ হাজার ৭০৮ জন ভারতীয় এফএমজিইতে অংশ নেয়। এর মধ্যে ১ হাজার ২৬৫ জনই বাংলাদেশী মেডিকেল থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি নিয়ে গেছেন। বাংলাদেশ থেকে ডিগ্রি নিয়ে পরীক্ষায় অংশ নেয়া পরীক্ষার্থীদের মধ্যে পাস করেছেন ৩৪৩ জন। সে হিসাবে পাসের হার মাত্র ২৭ দশমিক ১১ শতাংশ।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ডা. আরমান হোসেন বলেন, ‘ভালো প্রতিষ্ঠান থেকে গুণগত মানের ডিগ্রি নিয়ে থাকলে তো ফেল করার কথা না। দেশে অনেক মেডিকেল কলেজ আছে। এখন দেখতে হবে কোন ধরনের প্রতিষ্ঠানে তারা পড়েছে। বিশেষ করে গত কয়েক বছরে বেশকিছু প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, যেগুলোর বিরুদ্ধে সবসময়ই নিয়ম ও আইন না মানার অভিযোগ রয়েছে। আমাদের দেশের যেসব নাগরিক বিদেশ থেকে পড়ে আসে, আমরাও তাদের পরীক্ষা নিয়ে থাকি। সেখানে দেখা যায়, যারা ভালোভাবে পড়ে ভালো মানের ডিগ্রি নিয়ে আসছেন, তারা কোয়ালিফাই হচ্ছেন। আর যারা নিম্নমানের প্রতিষ্ঠানে পড়ে আসছেন, তারা অকৃতকার্য হচ্ছেন।’

পড়ুন: মেডিকেল ভর্তিতে প্রথম স্থান রাগীবের (ভিডিও)

দেশ ও প্রতিষ্ঠানভিত্তিক পারফরম্যান্স তালিকায় দেখা যায়, ২০১৫ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত বাংলাদেশী ৪০টি প্রতিষ্ঠান থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি নিয়েছেন ভারতীয়রা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ডিগ্রি দিয়েছে ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি চিটাগং (ইউএসটিসি)। প্রতিষ্ঠানটি থেকে ৪১৪ জন এফএমজিইতে অংশ নেয়। এর মধ্যে পাসের হার মাত্র ১৭ দশমিক ৬৩ শতাংশ। অর্থাৎ ইউএসটিসি থেকে ডিগ্রি নেয়া ৮২ শতাংশই নিজ দেশে গিয়ে ডাক্তারি পেশার সনদ পেতে ব্যর্থ হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ইউএসটিসির উপাচার্য মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আগে ইউএসটিসির ইনস্টিটিউট অব অ্যাপ্লাইড হেলথ সায়েন্সের অধীনে মেডিকেল ডিগ্রি দেয়া হতো। এখন সেটি চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন পরিচালিত হয়। এ বিষয়ে অধ্যক্ষ ভালো বলতে পারবেন।’

পড়ুন: মেয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এসে লাশ হলেন বাবা

জানতে চাইলে ইনস্টিটিউট অব অ্যাপ্লাইড হেলথ সায়েন্সের অধ্যক্ষ ডা. এহতেশামুল হক বলেন, ‘এমবিবিএস ডিগ্রির যে সিলেবাস তার সঙ্গে এফএমজিইর মিল নেই। এ টেস্টের জন্য প্রস্তুতির ব্যাপার রয়েছে। যারা প্রস্তুতি না নিয়ে টেস্টে অংশ নেন, তারা ভালো করতে পারবেন না। তবে এটার সঙ্গে আমাদের দেয়া ডিগ্রির মানের সম্পর্ক নেই।’

প্রতিবেদনে উল্লেখিত চার বছরে এফএমজিইতে অংশ নেয়া অন্যদের মধ্যে ১৪ জন বাংলাদেশ মেডিকেলের শিক্ষার্থী ছিলেন। এর মধ্যে পাস করেছেন সাতজন। এছাড়া চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ডিগ্রিধারী ১১ জনের মধ্যে তিন, ঢাকা মেডিকেল কলেজের ১৮ জনের মধ্যে আট, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজের ৫২ জনের মধ্যে সাত, জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের ৮৮ জনের মধ্যে ৩৩, জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজের ২১ জনের মধ্যে এক, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে ৩২ জনের মধ্যে ১৪, রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ১৯ জনের মধ্যে আট, তাইরুন্নেসা মেমোরিয়াল মেডিকেল কলেজের ৪৩ জনের মধ্যে ১৪, শাহাবউদ্দীন মেডিকেল কলেজের পাঁচজনের মধ্যে দুই এবং ঢাকা ন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের ৫৪ জনের মধ্যে ১৮ এফএমজিইতে উত্তীর্ণ হয়েছেন।

পড়ুন: চান্স হয়নি, মানবিকতায় ভর্তি হচ্ছেন তিন্নি!

এফএমজিই বিষয়ে ভারতের ন্যাশনাল বোর্ড অব এক্সামিনেশনের আগের পারফরম্যান্স প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয় ২০১৫ সালে। ২০১২ থেকে ২০১৪—তিন বছরের তথ্যের ভিত্তিতে প্রকাশ করা ওই প্রতিবেদনে দেখা যায়, বাংলাদেশ থেকে তখন সর্বমোট ৬২৬ জন এমএফজিইতে অংশ নেন। এর মধ্যে পাস করেন মাত্র ১৯৩ জন। সে হিসাবে ওই প্রতিবেদনে পাসের হার ছিল মাত্র ৩০ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

দুটি প্রতিবেদনের তথ্যের তুলনামূলক বিশ্লেষণে দেখা যায়, প্রতি বছর বাংলাদেশ থেকে ভারতীয়দের মেডিকেল ডিগ্রি নেয়ার হার বাড়ছে। তবে ডিগ্রি নেয়া শিক্ষার্থীদের এফএমজিইতে পাসের হার কমছে।

শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের অন্য দেশের মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি নিয়ে আসা ভারতীয়দের অধিকাংশও এই পরীক্ষায় ফেল করছে।

এনইবি প্রতিবেদন বলছে, ২০১৫ থেকে ২০১৮—এই চার বছরে মরিশাস থেকে পড়ে আসাদের ৫২ শতাংশ, চীনের মেডিকেল কলেজ থেকে পড়ে আসাদের ১১ শতাংশ, নেপালি প্রতিষ্ঠানের সনদধারীদের ১৭ শতাংশ, রাশিয়ার ডিগ্রিধারীদের ১২ দশমিক ৬৯ শতাংশ এবং ইউক্রেন থেকে পড়ে আসাদের মাত্র ১৫ শতাংশ এফএমজিই পরীক্ষায় পাস করেছে।

আরো পড়ুন: আবরারের জিনিসপত্র নিতে এসে বুয়েটে মূর্ছা যাচ্ছিলেন ছোট ভাই


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ