২৭ মার্চ ২০২০, ১১:১৫

করোনা রোগীর চিকিৎসায় আশা জাগাচ্ছে নতুন পদ্ধতি

  © সংগৃহীত

বিশ্বে ভয়াবহ আকার নেয়া করোনাভাইরাস চিকিৎসায় নতুন পদ্ধতির কথা জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংক্রামক ইয়ান লিপকিন। তিনি জানিয়েছেন, ‘ব্লাড-প্লাজমা থেরাপি’ করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) চিকিৎসায় ব্যবহৃত হতে পারে। এ পদ্ধতিতে আশাবাদী বিশেষজ্ঞরাও।

নিউরোলজি ও প্যাথলজি বিভাগের ওই অধ্যাপক বলেছেন, ‘নতুন উপায় আবিষ্কারের জন্য জানুয়ারিতে চীন ভ্রমণ করেছিলেন তিনি। সম্প্রতি একটি গবেষণায়ও দেখা গেছে, রোগীর প্লাজমা থেরাপি চিকিৎসা সফল হয়েছে।

ফক্স বিজনেস নেটওয়ার্কে ‘লো ডবস টুনাইট’ নামের চ্যাট শো অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘চীন যাওয়া কারণ ছিল, তারা চিকিৎসার জন্য আলাদা কী করছে, তা নির্ধারণ করা। এক সপ্তাহ আগে এক বন্ধুর একটি গবেষণাপত্র পেয়েছি। সে অনুযায়ী, প্লাজমা থেরাপি ১০ রোগীর চিকিৎসা করেন তিনি। এ পদ্ধতিতে সেরে ওঠা ব্যক্তির অ্যান্টিবডি নেওয়া হয়। ১০ জনের ক্ষেত্রেই তা কাজ করেছিল।’

তিনি জানান, এটা অবশ্য সম্পূর্ণ নতুন পদ্ধতি নয়। অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কারের আগে এমন পদ্ধতি ব্যবহার করা হতো। সেরে ওঠাদের প্লাজমাদাতা হিসেবে সহায়তার জন্য এগিয়ে আসতে বলা হবে। অনেককে আছেন, যাঁরা বিষয়টি নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন। এটি এমন একটি ব্যাপার, যা অসুস্থতা ও মৃত্যুর ক্ষেত্রে বড় পার্থক্য তৈরি করে।’

লিপকিন দাবি করেন, ‘গবেষণায় অনুযায়ী, এক ব্যক্তির প্লাজমা দিয়ে তিনজন রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব। এটি সহজ এবং ভ্যাকসিন না আসা পর্যন্ত কার্যকর সমাধান হতে চলেছে।’ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ঘোষণা করেছে, ১৮ মাসের মধ্যে এ রোগের ভ্যাকসিন তৈরি হতে পারে।

নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ব্লাড–প্লাজমা দিয়ে চিকিৎসাপদ্ধতি নিউইয়র্কে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হয়েছে। যাঁরা ইতিমধ্যে সেরে উঠেছেন তারা প্রচুর অ্যান্টিবডির উৎস হতে পারে। অ্যান্টিবডি থাকে যে রক্তে, তাকে বলা হয় ‘ক্যানভ্যালসেন্টস প্লাজমা’। কয়েক দশক ধরে এটি ইবোলা, ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগে ব্যবহৃত হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেভিড এল. রেইচ বলেন, ‘শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যার রোগীদের ক্ষেত্রে এ পদ্ধতি প্রয়োগ করা হবে। তবে রোগের চূড়ান্ত অবস্থায় থাকা কারও ক্ষেত্রে দেখা হবে না।’

সিএনবিসি জানিয়েছে, প্লাজমার মাধ্যমে এ চিকিৎসা পদ্ধতি চীনে পরীক্ষা করা হয়েছে। আর চীনের সংবাদ সংস্থা সিনহুয়া জানিয়েছে, উহানে চলতি মাসের শুরুর দিকে একটি হাসপাতালে প্লাজমা দিতে দেখা গেছে সেরে ওঠা এক ব্যক্তিকে।’