আলো ছড়াচ্ছে বৃহত্তর মাঝিরকাটা উন্নয়ন ফোরামের উদ্যোগ

  © টিডিসি ফটো

কোভিড-১৯ এর কবলে পড়ে পুরো পৃথিবী স্তব্ধ। এই মহামারির সময়ে তরুণ সমাজ এবং বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনগুলো এগিয়ে আসছে শুরু থেকেই। বাংলাদেশেও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার অন্যতম ইউনিয়ন গর্জনিয়ায় তরুণরা গড়ে তুলেছে ‘বৃহত্তর মাঝিরকাটা উন্নয়ন ফোরাম’ নামের এক সামাজিক সংগঠন। করোনা মহামারির শুরু থেকে কাজ করে তাদের সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে পুরো এলাকায়। দুর্যোগ মোকাবেলায় তাদের সামাজিক কর্মকান্ড এবং অগ্রগামিতায় প্রশংসা কুড়িয়েছে অনেক।

শুরুতে অসচ্ছল ১৩২টি পরিবারের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন তারা। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য বিতরণে ছিল, পাঁচ কেজি চাল, এক লিটার তেল, এক কেজি পেঁয়াজ, এক কেজি চিনি এবং দুই কেজি ছোলা।

এই উদ্যোগের পরপরই কমিটি গঠন করেন তারা। এর পরবর্তী উদ্যোগ হিসেবে ঈদের আগের দিন মাঝিরকাটার সকল মসজিদ স্যানিটাইজার এবং ডেটল দিয়ে পরিষ্কার করেন। জানা যায়, বিভিন্ন ইউনিটে বিভিক্ত হয়ে কাজ করেন তারা।

আজ শুক্রবার (২৯ মে) বৃহত্তর মাঝিরকাটার সকল কবরস্থান পরিষ্কার করার উদ্যোগ নিয়েছেন তারা। ফজরের নামাজের পরপরই কাজ শুরু করেন। এই পরিষ্কার অভিযানে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আজিজ, সহ-সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম, সহ-সভাপতি এ কে এম শাহজালাল, সাংগঠনিক সম্পাদক ওবাইদুল ইসলাম লিটনসহ সংগঠনের সদস্যরা। এছাড়াও এলাকার রাস্তার পাশে প্রায় দুই হাজার চারা লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছেন তারা।

সংগঠনের সভাপতি মিজানুর রহমান দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, আমরা আসলে অতি মহৎ কোন কাজ করছি না। তরুণ সমাজের দায়িত্ব সমাজের পাশে দাড়ানো। সেই দায়িত্ব পালন করেছি শুধু। সৃষ্টির শুরু থেকে এখনো পর্যন্ত সব উন্নয়নমূলক কাজে তরুণ সমাজ ভূমিকা পালন করে আসছে। আমরাও সেই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা করেছি। সংগঠনের সবাই সমাজের স্বার্থে নিজ উদ্যোগে কাজে নেমেছে।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আজিজ বলেন, আমরা সংগঠকরা কাজ করছি দেখে এলাকার সবাই আমাদের সাহায্য করেছেন। আর্থিক এবং শারীরিকভাবে আমরা তাদের সাহায্য পেয়েছি। সংগঠনের সদস্যদের তৎপরতায় এতদূর এগিয়ে এসেছি। আমরা সামনে এলাকার রাস্তাগুলোর পাশে চারা লাগানোর উদ্যোগ নিচ্ছি।

স্থানীয়রা মনে করছেন, এভাবে কাজ করলে এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকবে। এছাড়াও যারা অসচ্ছল আছেন তাদেরও অভাব অনেকটা কমে আসবে।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ