শিক্ষার্থীদের মানসিক সক্ষমতা বৃদ্ধিতে কাজ শুরু করেছে শাবি

শিক্ষার্থীদের মানসিক সক্ষমতা বৃদ্ধিতে কাজ শুরু করেছে শাবি
  © ফাইল ফটো

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে হতাশাগ্রস্ত শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মানসিক সক্ষমতা বৃদ্ধিতে স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি) প্রশাসন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) থেকে প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৮টি বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে পৃথকভাবে ৪দিনে ৪টি পর্বে অনলাইনে জুম অ্যাপের মাধ্যমে এ সেবা দেওয়া হবে।

প্রতি পর্বে ৭টি বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে নির্ধারিত দিনে রাত ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত এ সেবা দেয়া হবে। আগ্রহীরা ৮৪০৪৭৬০০৭৮ জুম আইডি এবং ১৪৪০৮০ পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে এ সেবা নিতে পারবে।

আজ বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) অনলাইনে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের বিষয়টি দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. রাশেদ তালুকদার।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা অনেকদিন যাবত বাড়িতে রয়েছে। তাদের মানসিক অবস্থা যেন কোন কারণে খারাপ না থাকে সেজন্য আমাদের এ উদ্যোগ। জুম মিটিংয়ের মাধ্যমে প্রত্যেক বিভাগের শিক্ষার্থীদের বর্তমান মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে আলোচনা ও পরামর্শ প্রদান করা হবে। এসময়ে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাউন্সিলিং সাইকোলজিস্ট ফজিলাতুন নেছা এ স্বাস্থ্য সেবায় সকলকে সার্বিক বিষয়ে পরামর্শ ও নির্দেশনা দিবেন বলে জানান।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা দপ্তর থেকে জানা যায়, মানসিক স্বাস্থ্যসেবার প্রথম পর্বে আগামীকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টি টেকনোলজি, ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং, পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং, নৃবিজ্ঞান ও বাংলা বিভাগ অংশগ্রহণ করবে।

আগামী বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় পর্বে অর্থনীতি, ইংরেজি, পলিটিক্যাল স্টাডিজ, লোকপ্রশাসন, সমাজকর্ম, সমাজবিজ্ঞান ও ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ অংশগ্রহণ করবে। তৃতীয় পর্বে আগামী ১ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) রসায়ন, জিয়োগ্রাফি এন্ড এনভায়রনমেন্ট, গণিত, পদার্থ, পরিসংখ্যান, সমুদ্রবিদ্যা ও বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগ অংশগ্রহণ করবে।

আগামী ৮ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার) শেষ পর্বে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি, ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স, আর্কিটেকচার, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড পলিমার সায়েন্স, সিভিল এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ও ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ অংশগ্রহণ করবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘করোনাকালীন এ সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী অনেকেই অবসাদগ্রস্থ ও বিষন্নতায় রয়েছেন। অনেকে দেখা যাচ্ছে কাজে অমনোযোগী ও হতাশাগ্রস্থ। এজন্য আমরা এ উদ্যোগ নিয়েছি যাতে করে তারা এ সেবা নিয়ে সুস্থ হয়ে কাজে মনোযোগী হতে পারে। আশা করি সংশ্লিষ্ট সকলেই এ সুযোগটা নিবে।’


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ