নীতিমালা জারি

বুয়েটে র‌্যাগিং-রাজনীতিতে জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তি ‘চিরতরে বহিষ্কার’

  © সংগৃহীত

র‌্যাগিং ও রাজনীতিতে জড়িত থাকলে সর্বোচ্চ শাস্তি ‘চিরতরে বহিষ্কার’ নির্ধারণ করে বাংলাদেশ প্রকৌশলী বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) একটি নীতিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। গত সোমবার (২ ডিসেম্বর) রাতে এ-সংক্রান্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পরিচালক মিজানুর রহমানের সাক্ষরে বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশ করেছে বুয়েট

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভবিষ্যতে র‌্যাগিংয়ের সাথে জড়িতদের এবং সাংগঠনিক রাজনীতির বিভিন্ন কার্যক্রমে জড়িতদের অভিযােগসমূহ মূল্যায়ন ও শান্তি নির্ধারণ বিষয়ে গঠিত কমিটির রিপাের্ট-এর আলােকে অভিযােগ প্রমাণিত হওয়া সাপেক্ষে অভিযুক্তদের বিভিন্ন মেয়াদে শান্তি নির্ধারণ করা হয়েছে ।

নতুন নীতিমালায় বলা হয়েছে, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে রাজনীতিতে জড়িত থাকলে, রাজনৈতিক পদে থাকলে, রাজনীতি করতে কাউকে উদ্বুদ্ধ বা বাধ্য করলে অপরাধ সাপেক্ষে শাস্তি সতর্কতা, জরিমানা, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে কোনও মেয়াদে বহিষ্কার।

বিজ্ঞপ্তিতে কয়েক ধাপে র‍্যাগিংয়ের শাস্তি নির্ধারণ করা হয়েছে। কোনও ছাত্রের মৃত্যুর শাস্তি বুয়েট থেকে বহিষ্কার ও থানায় মামলা দায়ের। কোনও ছাত্র গুরুতর শারীরিক ক্ষতি বা মানসিক ভারসাম্যহীনতার শিকার হলেও অভিযুক্তকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চিরতরে বহিষ্কার করা হবে। মৌখিক বা শারীরিক লাঞ্ছনা এবং সাময়িক মানসিক ক্ষতিসহ এ-সংক্রান্ত অপরাধের শাস্তি হচ্ছে সতর্কতা, জরিমানা, হল থেকে চিরতরে বহিষ্কার বা একাডেমিক কার্যক্রম থেকে একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বিরত রাখা। এ ধরনের অপরাধীকে শিক্ষাজীবনে ফিরতে হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঠিক করে দেয়া মনোরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কাউন্সেলিং করতে হবে।

এর আগে, গত ৬ অক্টোবর বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী। এ ঘটনার পর থেকে বুয়েটে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করছেন শিক্ষার্থীরা।

এই নীতিমালার প্রণয়নের মাধ্যমে আন্দোলনরত বুয়েট শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবির সব কটি পূরণ হলো।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ