১০ নম্বর বিপদ সংকেতেও পরীক্ষায় পবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

  © ফাইল ফটো

১০ নম্বর বিপদ সংকেতের মধ্যেও পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পবিপ্রবি) শিক্ষার্থীরা।

রবিবার (৯ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের এনিমেল সায়েন্স এন্ড ভেটেরিনারি মেডিসিন অনুষদের পূর্বনির্ধারিত সময়সূচী অনুযায়ী ডক্টর অফ ভেটেরিনারি মেডিসিন (ডিভিএম) ২য় সেমিস্টার এবং এনিমেল হাজবেন্ড্রি (এএইচ) ২য় সেমিস্টারের পরীক্ষা সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়।

অন্যদিকে ডিভিএম ৬ষষ্ঠ সেমিস্টার এবং এএইচ ৬ষ্ঠ সেমিস্টারের পরীক্ষা দুপুর ২টা থেকে দুপুর ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হয়।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল উপকূলের দিকে ধেয়ে আসায় বর্তমানে বরিশাল বিভাগের বিভিন্ন জেলা, পায়রা বন্দর, মোংলা বন্দর এবং অন্যান্য জায়গায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেই সঙ্গে দুপুর ২টার মধ্যে আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়।

এদিকে এ ১০ নম্বর বিপদ সংকেতের ভিতরে থাকা পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুপুর ২টা থেকেই পবিপ্রবিতে ২ লেভেলের সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হয়েছে। সকাল থেকে মুষলধারে বৃষ্টি পড়লেও এরকম দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় কোন কর্ণপাত করেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে পরীক্ষা বন্ধের দাবি জানালেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এ বিষয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এক ধরণের চাপা ক্ষোভ লক্ষ্য করা গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষার্থী জানান, ‘হল থেকে পরীক্ষাকেন্দ্র বেশি দূরে না হলেও, মুষলধারে বৃষ্টির কারণে প্রায় অর্ধেক ভিজে গিয়েছি, এরকম অবস্থায় পরীক্ষা দিতে হয়েছে।’

আরেক শিক্ষার্থী জানান, পরীক্ষার জন্য তাকে বরিশাল থেকে দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে আসতে হয়েছে। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে শিক্ষার্থীরা বিব্রতবোধ করছেন বলে জানা এ শিক্ষার্থী।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অনুষদটির ডিন অধ্যাপক ড. মো. মামুন অর রশিদ বলেন, ১০ নম্বর যে মহাবিপদ সংকেত দিয়েছে সেটা সন্ধ্যা থেকে কাজ করবে, এখন পরীক্ষা নিতে সমস্যা নেই। আর জেএসসি, জেডিসি- ওটা পাবলিক পরীক্ষা এ জন্য বন্ধ করা হয়েছে। যেহেতু আমাদের এখানে সকল শিক্ষার্থী আবাসিক হলে থাকে সেহেতু এখানে পরীক্ষা বন্ধ করা হবে না।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ