‘বুয়েটে নির্যাতনে মরে যাবো ভেবে কালিমা পড়তে শুরু করেছিলাম’

বুয়েটের হলে টর্চারসেলে র‌্যাগিংয়ের নামে নিষ্ঠুর নির্যাতনের শিকার হয়েছেন অনেকেই। তাদের মধ্যে একজন শাকিল (ছদ্মনাম)। বেঁচে যাওয়া এই শিক্ষার্থী গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন সেই নৃশংসতার কথা।

২০১৬ সালে বুয়েটে ভর্তি হন শাকিল (ছদ্মনাম)। তিনি বলেন তিতুমীর হলের ১০০৭ ও ১০১০ নং কক্ষে চলত অমানবিক নির্যাতন। তারা আমাকে রুমে ডেকে দরজা বন্ধ করে গালিগালাজ শুরু করে। এরপর শুরু হয় চর-থাপ্পর। তারপর আমি শিবির করি বলে শিকারোক্তি চায়। এরপর কোনো কারণ ছাড়াই আমাকে টানা ছয় ঘন্টা স্ট্যাম দিয়ে পেটানো হয়। মাথা থেকে পা পর্যন্ত সব জায়গায় আঘাত করে তারা। একটা সময় পাটিতে পড়ে যাচ্ছিলাম। তখনও একজন আমাকে ধরেছিল আর বাকিরা স্টাম দিয়ে মারছিল। তখন দোয়া-কালিমা পড়া শুরু করি। তখন নিশ্চিত মৃত্যু দেখতে পাচ্ছিলাম।

তিনি আরও বলেন, যখন আমার মুখ দিয়ে আর কিছুই বের হচ্ছিল না তখন তারা আমাকে ছেড়ে দেয়। তখন হল ছাত্রলীগের সভাপতি আমাকে বলে এই নির্যাতনের কথা যেন কেউ না জানে। তোর উপর আমার সর্বদায় নজরদারি থাকবে। পরে আমি আর কিছুই করিনি। কাউকে অভিযোগও দেইনি। তখন শুধু চিন্তা করেছি এই দেশে থাকব না, যেভোবেই হোক বাইরে চলে যাব।

 


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ