জন্মু-কাশ্মীরে উচ্চশিক্ষার জন্য আইআইটি, আইআইএম, এইমস প্রতিষ্ঠা: মোদী

সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদ করেছে ভারত। বিশেষ মর্যাদা হারিয়েছে জম্মু-কাশ্মীর। রাজ্যের মর্যাদা হারিয়ে তৈরি হচ্ছে আলাদা দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল— জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখ। এই প্রেক্ষিতেই বৃহস্পতিবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

মন্ত্রিসভার বৈঠকে সিদ্ধান্তের পর রাষ্ট্রপতির সই, রাজ্যসভা এবং লোকসভায় পাশ— এই গোটা প্রক্রিয়ায় কোনও মন্তব্য করেননি মোদী। সংসদের অধিবেশনের শেষ দিনে ভাষণ দেওয়ার কথা থাকলেও সুষমা স্বরাজের প্রয়াণে তা সম্ভব হয়নি। সেই প্রেক্ষিতেই আজ এ নিয়ে মুখ খুললেন মোদী।

জন্মু-কাশ্মীরের শিক্ষাব্যাবস্থা উন্নয়নে মোদী ঘোষণা করেছেন। তিনি বলেছেন, এখন জন্মু-কাশ্মীরে আইআইটি, আইআইএম, এইমস— এই সব প্রতিষ্ঠান তৈরি করা হবে। যে সব পরিকল্পনা শুধুমাত্র খাতায় কলমে ছিল, সেটাই এখন মাটিতে নেমে কাজ হবে। এই সময়েই রাজ্যে উন্নয়নের কাজকর্মে গতি আসতে শুরু করে।

এছাড়া খেলাধুলাও জন্মু-কাশ্মীরের যুবকদের উপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, খেলার দুনিয়ায় কাশ্মীরের যুবকরা দেশের মান আরও বাড়াবে।খেলাধুলোর প্রভূত উন্নতি হবে, সারা বিশ্বে তাঁদের প্রতিভা দেখানোর সুযোগ পাবে। সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তাতে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখের যুব সম্প্রদায় অনেক এগিয়ে যাবে। বলিউড, তেলুগু, তামিল সিনেমার লোকজনকে আর্জি জানাব, ফের উপত্যকায় শুটিংয়ে আসতে

বলিউডের কথা উল্লেখ করে মোদী বলেন, একটা সময় ছিল, সিনেমার শুটিংয়ের জন্য জম্মু-কাশ্মীরই ছিল অন্যতম গন্তব্য। জম্মু-কাশ্মীরকে সেরা পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে সবাইকে কাজ করতে হবে

গত ৫ অগস্ট ৩৭০ অনুচ্ছেদ প্রত্যাহারের বিল পেশ হয়েছে রাজ্যসভায়। তার আগের দিন অর্থাৎ রবিবার রাত থেকে জম্মু-কাশ্মীরে এখনও প্রায় সর্বত্র ১৪৪ ধারা জারি রয়েছে। ইন্টারনেট, মোবাইল, ল্যান্ডলাইন পরিষেবা— প্রায় সব কিছুই বন্ধ। ফলে কাশ্মীরবাসীর মধ্যে ক্ষোভ-বিক্ষোভ দানা বাঁধতে শুরু করেছে।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ