ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা আজ থেকে শুরু

  © সংগৃহীত

দেশে প্রথমবারের মতো আজ বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) থেকে শুরু হতে যাচ্ছে তিন দিনব্যাপী ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা’। প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) এ মেলার উদ্বোধন করবেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বুধবার মেলা উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি জানান, ডিজিটাল প্রযুক্তির মহাসড়ক বিনির্মাণের অগ্রগতি, চ্যালেঞ্জ ও সম্ভাবনা এবং পরিবর্তিত বিশ্বে নতুন সভ্যতার রূপান্তরে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, আইওটি, রোবটিক্স, বিগডাটা, ব্লকচেইন ইত্যাদি নিয়ে এ মেলার আয়োজন।

মন্ত্রী জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলার প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে- ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার প্রযুক্তির মহাসড়ক’। আইএসপিসহ ৮২টি প্রতিষ্ঠান, প্যারেন্টাল কন্ট্রোল, ট্রিপল প্লে (এক ক্যাবলে ল্যান্ডফোনের লাইন, ইন্টারনেট ও ডিশ সংযোগ), মোবাইল অ্যাপস, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা ও ডিজিটাল প্রযুক্তি ইত্যাদি প্রদর্শন করবে।

তিনি বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তি উদ্ভাবন, উপযোগী মানবসম্পদ সৃষ্টি, ডিজিটাল প্রযুক্তির আধুনিক সংস্করণের সঙ্গে জনগণের সেতুবন্ধন তৈরি এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়ন অগ্রগতি তুলে ধরাই ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা’র অন্যতম মূল লক্ষ্য।

মেলায় ওয়ালটন, স্যামসাং, সিম্ফনির মতো প্রতিষ্ঠান তাদের উৎপাদিত পণ্য দেখাবে। দেশি সফটওয়্যার কোম্পানিগুলো তাদের সফটওয়্যার ও সেবা উপস্থাপন করবে। টেলিকম অপারেটরগুলো তাদের ভয়েস, ইন্টারনেট ও মূল্য সংযোজিত সেবা (ভ্যাস) দেখাবে। জেডটিই, হুয়াওয়ে, নকিয়া, এরিকসন ফাইভ-জি প্রযুক্তি প্রদর্শন করবে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট টেলিমেডিসিন ও এটিএম সেবা দেখাবে। জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ভিশন মেলার মাধ্যমে দেখাবে টেলিমেডিসিন।

সংবা সম্মেলনে জানানো হয়, মেলায় লাইভ দেখা যাবে ফাইভ-জি। ফাইভ-জি প্রযুক্তি কেবল মোবাইলে কথা বলা কিংবা ইন্টারনেট ব্রাউজ করার প্রযুক্তি না। বিদ্যুৎ এবং গ্যাসের মতোই শিল্পের জন্য এই প্রযুক্তি অত্যাবশ্যক। 

আরো জানানো হয়, মেলায় ২৫টি স্টল, ২৯টি মিনি প্যাভিলিয়ন এবং ২৮টি প্যাভিলিয়ন থাকবে। সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের ডিজিটাল অগ্রগতি তুলে ধরা হবে। মেলায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে পৃথক কর্নার থাকবে। সেই কর্নারে প্রযুক্তির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জীবনী তুলে ধরা হবে।

১৩টি সেমিনারের মাধ্যমে সরকারের মন্ত্রী এবং দেশি ও বিদেশি অভিজ্ঞ বক্তারা বর্তমানের প্রযুক্তি ও আগামী দিনে প্রযুক্তির গন্তব্য নিয়ে কথা বলবেন। ট্যালেন্ট গ্যাপ, ডিজিটাল অর্থনীতি, ডিজিটাল গ্রোথ, এসডিজির অ্যাচিভমেন্ট ইত্যাদি বিষয়ে বক্তারা কথা বলবেন। মেলায় ডিজিটাল ডাক ঘর উদ্যেক্তা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বেলা আড়াইটায়।

বিকেল ৫টায় ডিজিটাল অর্থনীতি: শিল্প ও বাণিজ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তি বিষয়ক সেমিনারে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

শেষ দিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ডিজিটাল বাংলাদেশ- এ দু’টি বিষয়ের ওপর শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের জন্য উন্মুক্ত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা থাকবে। ১৮ জানুয়ারি (শনিবার) তিন দিনব্যাপী এই মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ