আজও রুমের চাবি পাননি ভিপি নুর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ভবনে হামলার ২২ দিন পর আজ মঙ্গলবার নিজ কক্ষের চাবি বুঝে পাওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু আজকেও প্রশাসনের গড়িমসির কারণে নিজ রুমের চাবি হাতে পাননি বলে অভিযোগ করেন ডাকসু ভিপি নুরুল হক। তবে আগামীকাল চাবি দেয়া হবে বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্বাস পেয়েছেন বলেও জানান তিনি।

দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে তিনি বলেন, ডাকসুর প্রত্যেকটি রুমে কার্যক্রম চলছে। শুধু আমার রুমটা তালাবদ্ধ। গত ২২ দিন ধরে আমি আমার নিজের রুমে ঢুকতে পারেনি।

তিনি আরো বলেন,ডাকসুতে হামলার তদন্ত চলছে বলে শুনছি অনেকদিন ধরে। কিন্তু সে তদন্তের শেষ কোথায় আজো জানি না। তদন্ত কমিটি আমাকে ডেকেছিলো। আর আজকে রুমের চাবি দেওয়া হবে বলা হয়েছিল। কিন্তু আজকে আমি যাওয়ার পরও রুম খোলার ব্যবস্থা করেনি। তা আসলে সত্যিই দুঃখজনক।

তাছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছ থেকে সবসময় বিমাতাসুলভ আচরণ পেয়ে থাকেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। আজকের ঘটনাও তার বিপরীত নয় বলে উল্লেখ করেন।

এই ব্যাপারে জানার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে থাকা প্রক্টর গোলাম রাব্বানীকে ফোন দিলে তিনি মিটিংয়ে আছেন বলে জানান।

অন্যদিকে সোমবার ডাকসুর সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘তদন্ত প্রতিবেদন না আসা পর্যন্ত কক্ষটি সিলগালা থাকবে। কারণ কমিটি তদন্তের স্বার্থে যেকোনও সময় ওই কক্ষ ব্যবহার করতে পারেন।’

গত ২২ ডিসেম্বর দুপুরে ডাকসু ভবনের নিজ কক্ষে নুরুলের ওপর হামলা চালান বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশের নেতা-কর্মীরা। এ সময় নুরুলের সঙ্গে থাকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও কয়েকটি কলেজের কয়েকজন ছাত্রসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন।

ওই দিনের ওপর হামলার ঘটনা তদন্তে ৬ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কমিটির আহবায়ক ছাড়া অন্য সদস্যরা হলেন শামসুন নাহার হলের প্রভোস্ট সুপ্রিয়া সাহা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য অসীম সরকার, স্যার পি জে হার্টগ ইন্টারন্যাশনাল হলের প্রভোস্ট মো. মহিউদ্দিন, সিন্ডিকেট সদস্য মিজানুর রহমান ও সহকারী প্রক্টর মুহাম্মদ মাঈনুল করিম।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ