০১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১:২৩

অছাত্র দমন ও নতুন শিক্ষার্থীদের সিট দিতে নুরের আল্টিমেটাম

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর  © টিডিসি ফটো

হল থেকে অছাত্রদের দমন এবং নতুন শিক্ষার্থীদের সিট দিতে প্রশাসনের প্রতি আল্টিমেটাম দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুর। আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে মেধা ও প্রয়োজনীতার ভিত্তিতে ১ম বর্ষ থেকেই সিট দেয়া না হলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে প্রশাসনের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

আজ রবিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে ডাকসুর সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি। 

এ সময় ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হাসান, বিন ইয়ামিন মোল্লা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ডাকসুর ভিপি বলেন, নির্বাচনের ৮ মাস অতিবাহিত হলেও শিক্ষার্থীদের অন্যতম সমস্যা গেস্টরুম-গণরুম নিয়ে সমাধানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে কোন কার্যকর উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। মেধা ও প্রয়োজনীয়তার ভিত্তিতে প্রশাসনিক প্রক্রিয়ায় শিক্ষার্থীদের সিট প্রদান করার তাগাদা দিয়ে ও প্রশাসনের কাছ থেকে আশ্বাস ছাড়া কোন সদুত্তর পাওয়া যায়নি বরং ডাকসুর নির্বাচিত প্রতিনিধি হয়েও ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদককে না জানিয়ে ডাকসুর অধিকাংশ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ ব্যাপারে উপাচার্যকে বারবার জানালেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। বরং উপাচার্যসহ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছ থেকেও পক্ষপাতমূলক আচরণ পেয়ে আসছি। যে কারণে বাজেট ও সিনেট সদস্য মনোনয়ন নিয়ে ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদক এর বক্তব্য গ্রহণ করা হয়নি।

নুরুল হক নুর বলেন, সর্বশেষ গত ২৯ নভেম্বর উপাচার্যের বাসায় ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদককে ছাড়াই ডাকসুর মিটিং হয় যা খুবই দুঃখজনক এবং নিয়ম নীতির পরিপন্থী। এছাড়া গত ২০ নভেম্বর ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে নিয়ে মিটিং করে সেটাকে ডাকসুর মিটিং বলে অভিহিত করা হয়।

ভিপি বলেন, ডাকসুর জিএস-এর বিরুদ্ধে আর্থিক কেলেঙ্কারি ও নৈতিক স্খলনের স্পষ্ট অভিযোগ করার পরও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

এ সময় শিক্ষার্থীদের সিট প্রদানে প্রশাসনকে আল্টিমেটাম দিয়ে ভিপি বলেন, বর্তমান প্রশাসন ডাকসুকে ডাকসুলীগে পরিণত করতে চায়। শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ের প্ল্যাটফর্ম করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানাই। অছাত্রদের দমন করে আগামী ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষ থেকে মেধা ও প্রয়োজনীয়তার ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের সিট দেওয়ার আহ্বান জানাই। ১৫ জানিুয়ারির মধ্যে এ দাবি বাস্তবায়ন না হলে শিক্ষার্থীদের নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে।