ঢাবির ‘ক’ ইউনিটের প্রশ্নে ভুল, ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া শিক্ষার্থীদের

  © টিডিসি ফটো

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের অধীনে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে ভুল রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা। আজ সকাল ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

জানা গেছে, ‘ক’ ইউনিটের অধীনে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায় এক বড় ধরনের ভুল চোখে পড়েছে। যে ভুলের কারণে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। প্রশ্নপত্রের পদার্থ বিজ্ঞানের লিখিত অংশের ইংরেজি অনুবাদে আদিবেগ দেওয়া থাকলেও বাংলায় আদিবেগ উল্লেখ করা হয়নি। যার কারণে অনেক শিক্ষার্থী এ প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেনি।

অনেক শিক্ষার্থী আদিবেগ বিহীন এ প্রশ্নের উত্তর মিলাতে গিয়েও পারেননি। পরে হতাশ হয়ে বাসায় গিয়ে দেখেন ইংরেজি অনুবাদে আদিবেগ দেওয়া ছিল। যদি বাংলায় আদিবেগ থাকতো তাহলে হয়তো উত্তর মিলাতে পারতেন বলে অনেকে মনে করছেন।

প্রশ্নের এমন ভুলে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থী হাবিব দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, ‘এ প্রশ্নটির উত্তর যখন আমি মিলাতে গিয়েছিলাম তখন নানা সমস্যার সম্মুখীন হয়েছি। পরে উত্তর না মিলাতে পেরে আমি এই প্রশ্নের উত্তর বাদ দিয়েছি। তবে প্রশ্নে বাংলায় অনুবাদ থাকায় ইংরেজি অনুবাদ আমি দেখিনি।’

তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বলবো, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এমন ভুল হওয়ার মত নয়। সবার দিক বিবেচনা করে এ প্রশ্নটির নম্বর সবাইকে দিয়ে দেওয়া হোক।’

এ বিষয়ে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, ‘যদি প্রশ্নে ভুল থাকে তাহলে কমিটি তা দেখবে। আমরা শিক্ষার্থীদের বিষয়টি লক্ষ্য রেখে সিদ্ধান্ত নেব।’

এ ব্যাপারে মোস্তাফিজুর রহমান তৌসিফ নামে এক শিক্ষার্থী ফেসবুকে লিখেছেন, ‘এই দায়ভার কে নিবে? ইংরেজি অনুবাদে আদিবেগ দেয়া থাকলেও বাংলায় আদিবেগ দেয়া নেই। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নে এমন ভুল হওয়া যৌক্তিক না। অনেকে বলবেন ইংরেজিতে তো ঠিক দেয়া আছে। কিন্তু এত অল্প সময়ে মধ্যে বাংলা ইংরেজি দুইটা প্রশ্ন দেখে উত্তর দেয়ার সময় থাকে কি না সেটাও ভেবে দেখা উচিত।

জানিনা প্রশাসন কি পদক্ষেপ নেবে, কিন্তু অনেক শিক্ষার্থী শুধু প্রশ্নপত্রের এই ভুলের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ তিন নাম্বার থেকে বঞ্চিত হবে।

তবে, এবারের ভর্তি পরীক্ষা সহজ হয়েছে বলে জানিয়েছে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা। প্রশ্নপত্র সহজ হলেও সময়ের জন্য অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা লিখিত অংশ লিখতে পারেনি। ফলে তাদের নিকট সহজ প্রশ্নও কঠিন হয়ে গেছে।

এ বিষয়ে নেত্রকোনা থেকে আসা ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী হাবিব দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাসকে বলেন, ‘প্রশ্নপত্র সহজ হয়েছে। তবে সময়ের জন্য লিখিত অংশ অনেকে লিখতে পারিনি।’

বিক্রমপুর থেকে আসা শিক্ষার্থী হাফিজ বলেন, ‘পরীক্ষা মোটামুটি ইজি হয়েছে। রিটেন সাইড একটু হার্ড হয়েছে। তবে, আমি আশাবাদী।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের অধীনে ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণীতে ভর্তি পরীক্ষা আজ শুক্রবার সকালে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ক্যাম্পাস ও ক্যাম্পাসের বাইরে মোট ৮৬টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীন এবং বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. তোফায়েল আহমদ চৌধুরীসহ অন্যান্যরা পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করেন।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ