অধ্যাপক ফারুকের পাশে কোটা আন্দোলনকারীরা

  © টিডিসি ফটো

বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে গবেষণা কেন হয় না জানেন? কারণ গবেষণার ফলাফল কর্তৃপক্ষের পক্ষে গেলে আলহামদুলিল্লাহ সেইসাথে আছে পুরস্কার সহ সহস্র সম্মান, আর বিপক্ষে গেলে নাউজুবিল্লাহ সেইসাথে আছে অপমান এবং হুমকি-ধমকি। তার বাস্তব একটি প্রমাণ হলো নিচের ঘটনাটি...

ঘটনা: সম্প্রতি পাস্তুরিত দুধের নমুনা নিয়ে গবেষণা করেছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বনামধন্য অধ্যাপক ফারুক স্যার। গবেষণায় বের হয়ে আসছে দুধ সহ বিভিন্ন দ্রব্য সামগ্রীতে ক্যামিকেল মেশানো নানান ক্ষতিকর উপাদান।

এই রিপোর্ট বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে বের হলে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন সরকারের সচিব মহোদয় সহ কর্তৃপক্ষ। মাননীয় সচিব সাহেব বলেন এটা নাকি উদ্দেশ্যে প্রনোদিত ভাবে করা হয়েছে এবং তিনি স্যারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও হুমকি দেন।

আমি দৃঢ়কণ্ঠে বলি মাননীয় সচিব সাহেব এতো বড় দুঃসাহস দেখাবেন না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এখনো নির্জীব হয়ে যায় নি, যে আমাদের একজন অবিভাবকের বিরুদ্ধে কথা বলবেন আর আমরা চুপটি মেরে বসে থাকবো। ফারুক স্যারের সাথে শুধু ছাত্রসমাজই নয় পুরো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

সেই সাথে পাশে আছি আমরা বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ

প্রিয় স্যার, আপনি আপনার গবেষণা চালিয়ে যান। আপনার সাথে পুরো দেশের জণগণ আছে। এই সব দুর্নীতিবাজ আমলাদের কথায় গবেষণার কাজ থামাবেন না। কারণ সবার আগে জণগণের কথা চিন্তা করতে হবে আমাদের।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ