চট্টগ্রামে করোনা সন্দেহে স্ট্রোকের রোগীকে চিকিৎসা না দেয়ার অভিযোগ

  © ফাইল ফটো

করোনা শনাক্ত না হওয়া সত্ত্বেও শুধু সন্দেহে ভিত্তি করে স্ট্রোকের লক্ষণ নিয়ে চিকিৎসা নিতে যাওয়া এক রোগীকে ভর্তি না নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রাম নগরীর পাঁচলাইশের পার্কভিউ হাসপাতালের বিরুদ্ধে। যদিও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসারে যতক্ষণ না রোগীকে করোনা পজিটিভ শনাক্ত করা হবে, ততক্ষণ যেকোনো রোগীকে চিকিৎসাসেবা দিতে বাধ্য থাকবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জানা যায়, গত শুক্রবার মাইল্ড স্ট্রোকের লক্ষণ নিয়ে চিকিৎসা নিতে যান মৃদুল চৌধুরী (৬৭)। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এক্সরে করার পর কোনো সমস্যা নেই জানিয়ে কিছু থেরাপি দিয়ে রোগীকে বাসায় পাঠিয়ে দেয়। ঠিক একদিন পর শুক্রবার (২২ মে) রোগীর মাইল্ড স্ট্রোকের লক্ষণের মতো খাওয়া-দাওয়া, কথা বলা ও নড়াচড়া বন্ধ হয়ে গেলে ফের তাকে নিয়ে যাওয়া হয় সেই পার্কভিউ হাসপাতালে। হাসপাতালের লোকজন এবার হঠাৎ করেই পিঠটান দিয়ে বসেন। করোনা সন্দেহের কথা বলে  গুরুতর অসুস্থ রোগীকে ভর্তি নেয়নি হাসপাতালটি।

রোগীর ছেলে সুবীর চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ শুক্রবার খাওয়া-দাওয়া, নড়াচড়া ও কথা বলা বন্ধ দেখে তাড়াতাড়ি পার্কভিউ হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে তারা থেরাপি আর এক্সরে করিয়ে বলেন রোগী সুস্থ আছেন এবং তার কোনো সমস্যা নেই। তারপর পুরো একদিন তিনি সুস্থ ছিলেন। রোববার দুপুরে আবার একই রকম সমস্যা দেখা দেয়। আবার হাসপাতালে নিয়ে গেলে তারা বলেন করোনা হতে পারে। আর সেজন্য তারা বাবাকে ভর্তি করায়নি। দুই ঘণ্টা ধরে অনেক অনুনয়-বিনয়, আকুতি মিনতি করলেও তারা ভর্তি নেয়নি। এখন এমন গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় বাবাকে বাসায় নিয়ে এলাম।’

এ বিষয়ে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) কেন্দ্রীয় কমিটি সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. মিনহাজ রহমান বলেন, তাছাড়া করোনা শনাক্ত না হওয়া পর্যন্ত রোগীকে সেবা দিতে বাধ্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এটি না মানলে সেটি অপরাধের পর্যায়ে পড়ে।

এ বিষয়ে পার্কভিউ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. রেজাউল করিম বলেন, রোগীর অনেক স্পষ্ট উপসর্গ ছিল। রোগীদের চিকিৎসাসেবা তো অবশ্যই দিব। কিন্তু হাইলি সাস্পেক্টেড রোগী তো রাখা যাবে না।


মন্তব্য

এ বিভাগের আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ