১৬ জানুয়ারি ২০২০, ১২:২৪

প্রতিশোধের নেশায় স্কুলছাত্রকে খুন করলো বন্ধু

নিহত স্কুলছাত্র ইব্রাহিম মিয়া রকি  © সংগৃহীত

সিনিয়র-জুনিয়র নিয়ে প্রতিপক্ষ বন্ধুর সঙ্গে পূর্ব বিরোধের জের ধরে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে ইব্রাহিম মিয়া রকি (১৪) নামে এক নবম শ্রেণির ছাত্রকে খুন করেছে। এ ঘটনায় আটককৃত ২ যুবক মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

ইতি মধ্যে এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ। এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে বলে পুলিশি তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। বুধবার সন্ধ্যায় সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত প্রকাশ করেন।

এতে বলা হয়, বিগত এক মাস পূর্বে ভিক্টোরিয়া হাইস্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্র শহরের ভানুগাছ রোড়ের মাংস ব্যবসায়ী দুলাল মিয়ার ছেলে নিহত ইব্রাহিম মিয়া রকির সঙ্গে সিনিয়র-জুনিয়র নিয়ে উপজেলার পশ্চিম খাসগাঁও গ্রামের আবুল মিয়ার ছেলে বন্ধু সাব্বিরের সিনিয়র জুনিয়র নিয়ে ঝগড়া হয়। এ নিয়ে রকি সাব্বিরকে চড়-থাপ্পড় মারে। ১ মাস পর সাব্বির ওই ঘটনার প্রতিশোধ নিতে গত সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় তার আরেক বন্ধু উপজেলার পশ্চিম খাসগাঁও গ্রামের মোখলেছ মিয়ার ছেলে ফয়সলকে নিয়ে শ্রীমঙ্গল রেল স্টেশনে বসে রকিকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

রাত সাড়ে ৮টার দিকে সাব্বির রকিকে ফোন করে তার অবস্থান জানতে চায়। রকি জানায়, সে ভানুগাছ সড়কের রেল গেটে রয়েছে। এরপর সাব্বির ও ফয়সল রকিকে এক বন্ধুর জন্মদিনের অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা বলে রকিকে ভুরভুরিয়া চা বাগানের ভেতর নিয়ে যায়।

এরপর সাব্বির ও ফয়সল রেকসিন সদৃশ্য স্কচটেপ দিয়ে রকির মুখ ও গলা পেঁচিয়ে প্রায় ১০ মিনিট বুকের ওপর বসে থাকে। এতে রকি নিস্তেজ হয়ে পড়লে সাব্বির তার গায়ের কালো রংয়ের চাদর ও কোমরের বেল্ট দিয়ে রকির গলা পেঁচিয়ে একটি কড়ই গাছের সঙ্গে বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে বলে তারা স্বীকার করে।

রকি মারা গেছে নিশ্চিত হলে সাব্বির ও ফয়সল বাড়ি চলে আসে। পরদিন মঙ্গলবার সকালে রকির লাশের খোঁজ পাওয়া গেলে সিনিয়র সহাকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামানের নেতৃত্বে থানা পুলিশ তদন্তে নামে।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ভিকটিমের গলায় পেঁচানো চাঁদর অপরাধীদের চিহ্নিত হওয়ার পর পুলিশ তা শনাক্ত করে। এ ছাড়া তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় দ্রুত এই হত্যার রহস্য উদঘাটনে সামর্থ্য হয় পুলিশ।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান বলেন, সামান্য কথা কাটাকাটি থেকে চড়-থাপ্পড় এবং এই চড়-থাপ্পড়ের প্রতিশোধ নিতে সাব্বির ও ফয়সল রকিকে নৃশংসভাবে হত্যা করে।