লক্ষ্মীপুর জেলার নামকরণের ইতিহাস ও সাধারণ তথ্য

লক্ষ্মীপুর জেলার নামকরণের ইতিহাস ও সাধারণ তথ্য
  © টিডিসি ফটো

লক্ষ্মীপুর_জেলা:
নামকরণ- লক্ষ্মী মানে সৌভাগ্য আর পুর মানে নগর। তাই লক্ষ্মীপুর মানে সৌভাগ্যের নগর। লক্ষ্মীপুরের প্রাচীন নাম লক্ষ্মদহ। দহ শব্দের অর্থ বদ্ধ জলাশয় বা বিশাল পুকুর। এখানে একটি বিশালাকৃতির বদ্ধ জলাশয় ছিল যেখানে প্রচুর মাছ পাওয়া যেতো। মৎস্য আহরণ করে এলাকাবাসী প্রচুর অর্থ আয় করতো।

তাই লক্ষ্মী বা সৌভাগ্যের এই দহটি এলাকার সবার কাছে লক্ষ্মীদহ বা লক্ষ্মদহ নামে সবার কাছে পরিচিতি লাভ করে। অন্য একটি মতে, দালাল বাজার এলাকার জমিদার রাজা গৌর কিশোর রায় চৌধুরী এর অধস্তন জমিদার লক্ষ্মীনারায়ণ রায় চৌধুরীর নামানুসারে এলাকাটির নাম হয় লক্ষ্মীপুর।

পূর্বে লক্ষ্মীপুর নামের ইংরেজি Laxmipur বা Luxmipur লেখা হলেও ২০১২ সালের ৩১ অক্টোবর বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রীপরিষদ বিভাগ থেকে বাংলা একাডেমির প্রমিত বাংলা বানানের রীতি অনুসরণের জন্য পরিপত্র জারি হওয়ার পর থেকে লক্ষ্মীপুর শব্দটি ইংরেজিতে Lakshmipur লেখা শুরু হয়।

লক্ষ্মীপুর_সদর_উপজেলা:
নামকরণ- জেলার নামকরণ অনুসারে।

রামগঞ্জ_উপজেলা:
নামকরণ- হিন্দু পুরাণ অনুসারে দশাবতারের অন্যতম রামচন্দ্রের নামানুসারে এলাকাটির নাম হয় রামগঞ্জ। ১৮৯১ খ্রিস্টাব্দে এখানে থানা সদর দপ্তর প্রতিষ্ঠিত হয়।

রায়পুর_উপজেলা:
নামকরণ- জমিদার নারায়ণচন্দ্র রায় এর পদবি অনুসারে এলাকাটির নামকরণ করা হয়। অন্য একটি মতে, রাই মানে সরিষা জাতীয় এক প্রকার শস্য। এলাকাটিতে একসময় প্রচুর রায় জন্মাতো। এরজন্য রাইপুর থেকে অপভ্রংশে রায়পুর এর নামকরণ করা হয়। ১৮৭৭ খ্রিস্টাব্দে এখানে থানা সদর দপ্তর প্রতিষ্ঠিত হয়।

রামগতি_উপজেলা:
নামকরণ- রামচরণ নামে একজন ব্যবসায়ীর নামানুসারে এলাকাটির নামকরণ করা হয় রামগতি। রামচরণ এ বাজারে ব্যবসায় করে বেশ অর্থবান ও প্রভাবশালী হয়ে উঠেন। বড় বড় ব্যবসায়ীরা যেখানে বসে ব্যবসায় পরিচালনা করতো এবং টাকা পয়সা গ্রহণ করে তাকে গদি বলা হতো। এ বাজারে রামচরণের গদি ছিল সবচেয়ে বড়। এটি জনসাধারণ্যে রামগদি অপভ্রংশে এলাকাটির নাম হয় রামগতি। ১৮৬২ খ্রিস্টাব্দে এখানে থানা সদর দপ্তর প্রতিষ্ঠিত হয়। এর পূর্বে রামগতি বাজারটি হাতিয়া থানার অধিভুক্ত ছিল।

কমলনগর_উপজেলা:
নামকরণ- প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ডাক নাম কমল। কমল হতে উপজেলাটির নামকরণ করা হয় কমলনগর। ২০০৬ খ্রিস্টাব্দের ৬ জুন রামগতি উপজেলার কিয়দংশ নিয়ে কমলনগর উপজেলা গঠন করা হয়।

জেলার_গুরুত্বপূর্ন_তথ্য:

আয়তন: ১৪৫৬ বর্গ কিলোমিটার

জনসংখ্যা: ১৭,২৯,০০০ জন

মোট উপজেলা: ৫ টি (লক্ষ্মীপুর সদর, রামগঞ্জ, রায়পুর, রামগতি ও কমলনগর)

সংসদীয় আসন: ২৭৪ (রামগঞ্জ), ২৭৫ (রায়পুর-লক্কমীপুর সদর একাংশ), ২৭৬ (লক্ষ্মীপুর সদর বাকী অংশ), ২৭৭ (রামগতি উপজেলা ও কমলনগর উপজেলা)।

জেলার মর্যাদা লাভ: ১৯৮৪

পাকিস্তানী দখল মুক্ত হয়: ৪ ডিসেম্বর, ১৯৭১

জেলার বিখ্যাত: নারিকেল, সুপারি, ইলিশ, সয়াবিন, মহিষের দই, ঘিগজ মুরি।

বিখ্যাত ব্যাক্তি: মোহাম্মদ উল্যাহ (প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি), মোঃ রহুল আমিন (সাবেক প্রধান বিচাপতি), আ স ম আব্দুর রব (প্রথম পতাকা উত্তোলনকারী), কাজী মোতাহার হোসেন (সাহিত্যিক), সেলিনা হোসেন (কথা সাহিত্যিক), রামেন্দু মজুমদার (সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব), নিশাত মজুমদার (প্রথম বাংলাদেশী নারী এভারেস্ট বিজয়ী) প্রমুখ।

দর্শনীয় স্থান: আলেকজান্ডার বাধ ও মেঘনা বীচ, মজু চৌধুরীর হাট নদীবন্দর, দালাল বাজার জমিদার বাড়ি, জিনের মসজিদ (রায়পুর) ইত্যাদি।

#তথ্যসূত্র: বাংলাদেশ সরকারের ওয়েবপোর্টাল (www.lakshmipur.gov.bd), লক্ষ্মীপুরের অনলাইন সংবাদপত্র (www. Lakshmipur24.com), উইকিপিডিয়া (www.wikipedia.org), বাংলাপিডিয়া (www.banglapedia.org), বাংলাদেশের স্থানীয় নামের ইতিহাস, ম্যাগনাস ওপাস, ঢাকা। বাংলা স্থাননাম, আনন্দ পাবলিশার্স লিমিটেড, কলকাতা।
বাংলাদেশের জেলা নামকরণের ইতিহাস, গতিধারা। ৬৪ জেলা ভ্রমণ, অনিন্দ্য প্রকাশ।
বাংলাদেশের জেলা গেজেটিয়ার, বৃহত্তর নোয়াখালী ১৯৭৭।
বাংলাদেশের লোকজ সংস্কৃতি গ্রন্থমালা: লক্ষ্মীপুর জেলা, বাংলা একাডেমি। জেলা উপজেলা ও নদনদীর নামকরণের ইতিহাস, ড. মোহাম্মদ আমিন। নামকরণের নেপথ্যে, আহমদ আবদুল্লাহ মানিক। বাংলাদেশের ইতিহাস, রমেশচন্দ্র মজুমদার, কলকাতা। বাংলা পিডিয়া, ১ম-১০ম খন্ড, বংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি।

লেখক: শিক্ষা ক্যাডার, ৩৫তম বিসিএস


মন্তব্য