রোহিঙ্গাদের কারণে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা হুমকির মুখে: ঢাবি উপাচার্য

বাংলাদেশে ১১ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী রয়েছে উল্লেখ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন রোহিঙ্গাদের অবস্থানের কারণে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ শান্তি ও নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়েছে।

মঙ্গলবার (০৩ সেপ্টেম্বর) সকালে নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনের সেমিনার কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বিভাগের ২০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়ন বিভাগ ফাউন্ডেশন ডে ট্রাস্ট ফান্ড’ এ অনুষ্ঠান আয়োজন করে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে নিযুক্ত জাতিসংঘের আবাসিক কোঅর্ডিনেটর মিজ মিয়া সেপ্পো ‘ফাউন্ডেশন ডে লেকচার’ প্রদান করেন। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম এবং বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. ডালেম চন্দ্র বর্মন। বিভাগীয় চেয়ারম্যান মো. তৌহিদুল ইসলাম অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন।

জাতিসংঘের আবাসিক কোঅর্ডিনেটর মিয়া সেপ্পো তাঁর বক্তব্যে সহিংসতা, সংঘর্ষ, সন্ত্রাস ও জঙ্গী তৎপরতা বন্ধে এবং মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ সরকারের ভূমিকা, প্রতিশ্রুতি ও কার্যকরী পদক্ষেপের ভূয়সী প্রশংসা করেন।

অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান শান্তি ও সংঘর্ষ অধ্যয়ন বিভাগের ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিভাগীয় শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অতিথিদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। এ সময় তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সহিংসতা, সংঘর্ষ, সন্ত্রাস ও জঙ্গী তৎপরতা এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় জাতিসংঘ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। এসব সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠার অন্তরায় বলে তিনি উল্লেখ করেন।

রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে এনে উপাচার্য বলেন, প্রায় ১১ লক্ষ রোহিঙ্গার অবস্থানে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ শান্তি ও নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়েছে। বাংলাদেশ সবসময়ে জাতিসংঘের সহযোগিতা পেয়ে আসছে উল্লেখ করে উপাচার্য রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায়ও তাদের কার্যকরী সহযোগিতা থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আলোচনা পর্ব শেষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের নেতৃত্বে ক্যাম্পাসে একটি শান্তি র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিতে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে কেক কেটে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানের উদ্ধোধন করেন উপাচার্য। ফুল দিয়ে আমন্ত্রিত অতিথিদের বরণ করে নেন বিভাগের শিক্ষার্থীরা।


মন্তব্য