চাকরির বয়স ৩৫ করলে তো সংসার-সন্তান সামলে পরীক্ষা দিতে হবে

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা নিয়ে কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ৩৫ দাবিতে আন্দোলন করলে করুক, সমস্যা নেই। আন্দোলন যে কেউ করতেই পারে, আন্দোলন করলে তো আমি বাঁধা দিতে পারব না। তাছাড়া আন্দোলন করলে অন্তত রাজনীতিটা শিখবে। কিন্তু কারো প্ররোচনায় পড়ে যদি আন্দোলন করে, তবেই বুঝতেই পাচ্ছেন, অবস্থাটা কী হবে?

সোমবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে সদ্য সমাপ্ত চীন সফর নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার যৌক্তিকতা নেই বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘১৬ বছরে এএসসি পাস, চার বছরে অনার্স এবং এক বছরে মাস্টার্স। তারপরও এক-দুই বছর দেরিও হয়, তাহলে ২৫ থেকে ২৬ বছরে পড়া শেষ হয়। এখন এই অবস্থায় চাকরিতে প্রবেশের বসয় ৩৫ চাই আন্দোলনের জবাব কী হবে আপনারা ঠিক করেন, আমি সুযোগ দিচ্ছি।’

এ সময় তিনি বিসিএস পরীক্ষার কয়েকটি ফলাফল তুলে ধরে ৩৫ করার অযৌক্তিকতা তুলে ধরেন। বলেন,  ৩৫তম বিসিএসে ২৩ থেকে ২৫ বছরের প্রার্থীদের মধ্যে ৪০.৭ শতাংশ, ২৫ থেকে ২৭ বছরের প্রার্থীদের মধ্যে ৩০.২৯ শতাংশ এবং ২৭ থেকে ২৯ বছরের প্রার্থীদের মধ্যে ১৩.১৭ শতাংশ পাস করেছে। এ ছাড়া ২৯ বছরের বেশি বয়সের প্রার্থীদের পাসের হার ৩.৪৫ শতাংশ।

৩৬তম বিসিএসে ২৩ থেকে ২৫ বছরের প্রার্থীদের ৩৭.৪৫ শতাংশ, ২৫ থেকে ২৭ বছরের প্রার্থীদের মধ্যে ৩৪.৭৮ শতাংশ, ২৭ থেকে ২৯ বয়সের ১৯.৮৯ শতাংশ প্রার্থী পাস করেছেন। এ ছাড়া ২৯ বছরের বেশি বয়সী প্রার্থীদের পাসের হার ৩.২৩ শতাংশ।

এ ছাড়া ৩৭তম বিসিএসে ২৩ থেকে ২৫ বছরের ৪৩.৬৫ শতাংশ, ২৫ থেকে ২৭ বছরের মধ্যে ২৩.৩৫ শতাংশ, ২৭ থেকে ২৯ বয়সের ৭.২০ শতাংশ প্রার্থী পাস করেছেন। এই পরীক্ষায় ২৯ বছরের বেশি বয়সী প্রার্থীদের পাসের হার ০.৬১ শতাংশ।  এখন আপনারাই বলেন, চাকরির বয়স বাড়ালে কী হবে?

শেখ হাসিনা বলেন, যদি চাকরিতে ৩৫ বছর করা হয়, তবে তো ছেলে-মেয়ে, ঘর-সংসার সামলে চাকরির পরীক্ষা দিতে হবে। কাজ করার তো সময় থাকে। ৩৫ দাবি যদি তোলার জন্যই তোলা হয়, তবে কিছু বলার নেই। হতে পারে তারা এই আন্দোলন তথা দাবির জন্য আলাদা সুবিধা বা অনুপ্রেরণা পাচ্ছেন। কিন্তু ৩৫ করলে অবস্থাটা কী হবে?

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ৩৫ বছরে চাকরি পেলে ট্রেনিং করতে ৩৭ বছর লেগে । তাহলে তো সে পেনশনও পাবে না। কারণ পেনশন পেতে হলে নির্দিষ্ট সময় চাকরিতে করতে হয়। তাছাড়া একটা সরকার কাদের দিয়ে দেশ চালাবে? আমরা সব সময় বলি- যুবক ও মেধাবীদের দেশ চলবে। এটা স্বাভাবিক নিয়ম। ৩৫ করলে কী হবে?

৬১ টাকায় গ্যাস কিনে ৯.৮ টাকায় দিচ্ছি
গ্যাসের আবাসিক সংযোগের বিল বেড়েছে ১৭৫ টাকা। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন করেন এক সাংবাদিক। উত্তরে তিনি বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নতি চাইলে এলএনজি আমদানি করতেই হবে। বিদ্যুৎ উৎপাদন, শিল্পায়ন আর প্রবৃদ্ধির জন্য এটা জরুরি। আর অর্থনৈতিক উন্নতি চাইলে মেনে নিতে হবে। বিদেশেও যারা এলএনজি আমদানি বা গ্যাস আমদানি করে। এটা তারা মেনে নেয়। প্রতি ঘনমিটার এলএনজির আমদানি খরচ ৬১.১২ টাকা এবং দাম বাড়ানোর পরও সরকার তা দিচ্ছে ৯.৮ টাকায়। তার পরেও আন্দোলন!

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ভারতে রান্নার গ্যাসের দাম কমানোর বিষয়টি যারা তুলছেন, তারা যেন সে দেশে গ্যাসের দামের বিষয়টি বিবেচনায় আনেন।

দাম বাড়ানোর পরও ১০ হাজার কোটি টাকার ওপরে ভর্তুকি দিতে হচ্ছে বলেও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। শেখ হাসিনা বলেন, ‘তাহলে আন্দোলন যখন করেছ, এক কাজ করি, যে দামে কিনব, সে দামে বেচব। ৬১ টাকায় নেব। তাহলে আমার কোনো ভর্তুকি দিতে হচ্ছে না।’

এলএনজি আমদানির বিকল্প নেই জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা প্রবৃদ্ধি ৮.২ শতাংশ করতে চাই। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দিতে চাই, শিল্পায়ন করতে চাই।’ বামদের হরতাল ও তাতে বিএনপির সমর্থন নিয়ে কটাক্ষও করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘বাম আর ডান মিলে গেছে। এক সেঙ্গ এই তো, খুব ভালো।’ পরে শেখ হাসিনা আবার বলেন, ‘বহু দিন পরে হরতাল পেলাম, পরিবেশের জন্য ভালো।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, চীনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমার বৈঠক হয়েছে। বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারের নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে দেশটির সরকারকে সম্মত করতে চেষ্টা করবেন বলে আমাকে আশ্বস্ত করেন। রোহিঙ্গা সমস্যা বাংলাদেশের জন্য একটি বড় সমস্যা উল্লেখ করে চীনের প্রধানমন্ত্রী বলেন, চীন তার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে দুইবার মিয়ানমারে পাঠিয়েছে। আলোচনার মাধ্যমে এ সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনে তারা আবারও মন্ত্রীকে মিয়ানমারে পাঠাবে। তিনি বলেন, আমি উন্নয়নের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জনে এই অঞ্চলে শান্তি ও স্থিতিশীলতার ওপর গুরুত্বারোপ করি। রোহিঙ্গা সঙ্কটের কারণে এই শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিঘ্নিত হাতে পারে বলে আমি উল্লেখ করি।

উল্লেখ্য, চীনের প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াংয়ের আমন্ত্রণে পাঁচ দিনের সরকারি সফরে গত ১ জুলাই বেইজিং যান প্রধানমন্ত্রী। সফর শেষে ৬ জুলাই তিনি দেশে ফেরেন। চীন সফরে দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এবং প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াংয়ের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি চীনের দালিয়ান শহরে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) অ্যানুয়াল মিটিংয়ে যোগদান করেন এবং ‘কোঅপারেশন ইন দি প্যাসিফিক রিম’ শীর্ষক প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে ঢাকা এবং বেইজিংয়ের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা সংক্রান্ত ৯টি চুক্তি স্বাক্ষর হয়।


মন্তব্য