অনলাইন ক্লাস: বিয়ের ‘মঙ্গলসূত্র’ বেঁচে টিভি কিনলেন মা!

  © সংগৃহীত

বিশ্বে চলমান কভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে পাঠদান অব্যাহত রেখেছে অধিকাংশ দেশ। তবে ইন্টারনেটের ডাটা খরচ, স্মার্টফোন কিংবা টেলিভিশন না থাকায় অনেক শিক্ষার্থী নিজেদের এই কার্যক্রমে যুক্ত করতে পারেন না। তখন অভিভাবক সন্তানদের কথা ভেবে নিজের মূল্যবান জিনিস বিক্রি করে দিচ্ছেন।

এমনই ঘটনা ঘটেছে ভারতের কর্ণাটকের নারগুন্দ তালুকের রাড্ডার নাগানুর গ্রামে। সন্তানদের অনলাইন ক্লাসে যুক্ত নিজের মঙ্গলসূত্র বিক্রি করেছেন তাদের মা। কস্তুরী নামের ওই নারী ও তার স্বামী কনস্ট্রাকশন শ্রমিক হিসাবে কাজ করেন। তার কন্যার নবম শ্রেণীতে পড়ে এবং ছেলে পড়ে সপ্তম শ্রেণীতে।

চলমান করোনা পরিস্থিতিতে সন্তানরা যেন টেলিভিশনের শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান দেখতে পারেন সেই জন্যই সে তার মঙ্গলসূত্র ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দিয়েছেন। এতদিন পর্যন্ত তারা প্রতিবেশীর বাড়িতে গিয়ে তাদের টিভিতে অনুষ্ঠানগুলো দেখতেন। কিন্তু ওই একই সময়ে প্রতিবেশীরা টিভির অন্য অনুষ্ঠান দেখার কারণে তাদের টিভিতে প্রচার হওয়া অনেক গুরুত্বপূর্ণ ক্লাস মিস করতে হয়। তাই কোন উপায় না দেখে কস্তুরী তার মঙ্গলসূত্রটি বিক্রি করে একটি টিভি কিনে ফেলেন।

জানা গেছে, করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের টেলিভিশনের মাধ্যমে পাঠদান অব্যাহত রেখেছে কর্ণাটকের রাজ্য সরকার। টেলিভিশনের চন্দনা চ্যানেলে সরকারি স্কুলের তরফ থেকে শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান সম্প্রচারিত হয়।

ঘটনা জানার ওই নারীর মঙ্গলসূত্র ফিরিয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছেন রাজ্যের প্রধানমন্ত্রী এবং জে.ডি.এস লিডার এইচ.ডি কুমারস্বামী। তিনি বলেন, ‘এই ঘটনাটি প্রমাণ করছে যে এই মহামারীর সময় কিভাবে দরিদ্র মা-বাবারা ক্রমাগত চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছেন। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে কস্তুরীর সব ব্যয় ভার বহন করা হবে।

সূত্র: ভারত বার্তা।


মন্তব্য