জামিয়া ছাত্রদের ওপর হামলাকারী পুলিশের পক্ষ নিলেন অমিত শাহ

  © আনন্দবাজার

দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের হামলার ফুটেজ সামনে আসতেই পুলিশের পক্ষ নিলেন ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তাঁর নিজেরই মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা দিল্লি পুলিশের ৭৩তম প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে জামিয়া প্রসঙ্গ না-টেনেই পুলিশের পক্ষ নেন তিনি।

অমিত শাহ বলেন, ‘পুলিশের কাজ আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করা। পুলিশ কারও জাত-ধর্ম দেখে কাজ করে না। পুলিশ নিরপেক্ষ, কারও শত্রুও নয়। তাই তাদের প্রাপ্ত সম্মানটুকু দেওয়া উচিত।’ দিল্লি পুলিশকে কোনও রকম প্ররোচনায় পা না-দেওয়ার আহবান জানান অমিত।

গত ১৫ ডিসেম্বর জামিয়া ক্যাম্পাসে ঢুকে শিক্ষার্থীদের মারের অভিযোগ উঠেছিল দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান শিক্ষার্থী এবং প্রাক্তনীদের নিয়ে গঠিত জামিয়া কো-অর্ডিনেশন কমিটি সে দিনের সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশ্যে এনেছে।

জামিয়ার পাঠকক্ষে ঢুকে শিক্ষার্থীদের মারধর পুলিশের! (ভিডিও)

সত্যাসত্য যাচাই করা না-গেলেও, সেই ফুটেজে মারধরের পাশাপাশি লাঠি উঁচিয়ে শিক্ষার্থীদের শাসাতেও দেখা গিয়েছে পুলিশকে। অমিত সরাসরি সেই ফুটেজ প্রসঙ্গে না-ঢুকলেও, দিল্লি পুলিশের প্রশংসা করে কার্যত তাদের ঢাল হয়ে দাঁড়ালেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

দেশ‌ের প্রথম স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সর্দার বল্লভভাই পটেলের ১৯৫০-এর বক্তৃতার কিছু অংশ উদ্ধৃত করে অমিত এ দিন বলেন, ‘হিংসা কিংবা উস্কানি যা-ই থাক না কেন, পুলিশের উচিত শান্ত ভাবে পরিস্থিতির সামাল দেওয়া। তবে প্রয়োজনে দুষ্কৃতীদের শক্ত হাতেও মোকাবিলা করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে উদ্ধৃত করেও তাঁকে বলতে শোনা গেল, ‘আমাদের বুঝতে হবে, পুলিশ রয়েছে আমাদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্যই।’

অমিতের সঙ্গে দিল্লি পুলিশের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দিল্লির উপরাজ্যপাল অনিল বৈজল, পুদুচেরির উপরাজ্যপাল কিরণ বেদী, দিল্লির সিপি অমূল্য পট্টনায়েক প্রমুখ। অমিত বলেন, ‘পুলিশের গঠনমূলক সমালোচনা হতেই পারে। তবে আমাদের ভুলে গেলে চলবে না যে, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে কর্তব্যরত অবস্থাতেই প্রাণ গিয়েছে প্রায় ৩৫ হাজার পুলিশকর্মীর।’

প্রজাতন্ত্র-স্বাধীনতা দিবসের মতো অনুষ্ঠান-সহ বিদেশি অতিথিদের নিরপত্তা দেওয়া নিয়েও দিল্লি পুলিশের ভূয়সী প্রশংসা করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকেই মনে করিয়ে দিলেন, ‘দিল্লি সেফ সিটি’ প্রকল্পের জন্য কেন্দ্র ৮৫৭ কোটি টাকা বরাদ্দের অনুমোদন দিয়েছে।

জানালেন, দিল্লির ১৬৫টি থানা এলাকায় ১০ হাজার সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। মহিলাদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে আরও ৯,৩০০টি সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর অনুমতি দিয়েছে তাঁর মন্ত্রণালয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দাবি, দিল্লির পুলিশের আবাসন নির্মাণ খাতে কেন্দ্র ১৩৭ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। অদূর ভবিষ্যতেই পুলিশের আবাসন সমস্যা মিটবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি। খবর: আনন্দবাজার।


মন্তব্য

সর্বশেষ সংবাদ