নাইন-ইলেভেন: জড়িতদের নাম জানাবে যুক্তরাষ্ট্র

নাইন-ইলেভেন ১৮ বছর আগের ঘটনা। এতে হামলার সঙ্গে জড়িত একজনের নাম প্রকাশ করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের আইনি পদক্ষেপের অংশ হিসেবে ওই ব্যক্তির নাম জানাবে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ বৃহস্পতিবার এ কথা জানিয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের হয়ে আইনি লড়াই চালানো আইনজীবীদের কাছে জড়িত সেই ব্যক্তির নাম জানানো হবে। তবে সেই নাম প্রকাশ্যে কিংবা গণমাধ্যমে আনা হবে কি না, সে ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু জানায়নি যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগ।

অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার জড়িত ব্যক্তির নাম জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রাষ্ট্রের গোপনীয় বিষয় প্রকাশ্যে না এনে শুধু নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের আইনজীবীদের জানানোর ব্যাপারেই মত দিয়েছেন তিনি। বিচার বিভাগের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সেই ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের মৃত্যুর জন্য কে বা কারা দায়ী, এটি তাঁদের পরিবার জানতে চায়। এফবিআই তাঁদের পরিবারের এই চাওয়া সম্পর্কে অবগত।

নিহত ব্যক্তিদের পরিবারও বিচার বিভাগের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। নিহত এক ব্যক্তির পরিবারের হয়ে আইনি লড়াই চালিয়ে যাওয়া আইনজীবী টেরি স্ট্রাডা বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, পরিবারগুলো সত্যি ঘটনা জানতে চায়। মৌলিক এই তথ্যটুকু জানতে তো তাঁদের বারবার আবেদন জানানোর কথা নয়। হামলার সঙ্গে সৌদি আরবের সম্পৃক্ততা আছে কি না, সেটি অন্ধকারে রাখাও উচিত নয়।

নিহত ব্যক্তিদের পরিবারের দাবি, টুইন টাওয়ারে চালানো জঙ্গি হামলার সঙ্গে সৌদি আরবের সম্পৃক্ততা আছে। আদালতকেও এ তথ্য জানিয়েছেন তাঁরা। ধারণা করা হয়, টুইন টাওয়ারে হামলা চালানো ১৯ জঙ্গির মধ্যে ১৫ জনই সৌদি আরবের। কিন্তু সৌদি আরব শুরু থেকেই জঙ্গি হামলার সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে। ২০০৪ সালে মার্কিন কংগ্রেসের নাইন-ইলেভেন কমিশনও জানিয়েছিল, আল-কায়েদাকে অর্থায়ন করেছে সৌদি আরব, এমন কোনো প্রমাণ তারা পায়নি।

২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা (এফবিআই) জানায়, ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ফাহাদ আল-থুমাইরি ও ওমর আহমেদ আল-বায়ুমি নামের দুই সৌদি নাগরিকের বিষয়ে তদন্ত করছে তারা।

ওয়াশিংটন পোস্টের দাবি, আল-থুমাইরি সৌদি আরবের সাবেক দূতাবাস কর্মকর্তা ছিলেন। আর আল-বায়ুমি সাবেক সৌদি গোয়েন্দা কর্মকর্তা ছিলেন বলে সন্দেহ করা হয়। এফবিআইয়ের প্রতিবেদনে তৃতীয় একজন ব্যক্তির সংশ্লিষ্টতার কথাও বলা হয়, কিন্তু তাঁর পরিচয় সম্পর্কে কোনো ধারণা দেওয়া হয়নি তখন। নিহত ব্যক্তিদের পরিবার তৃতীয় সেই ব্যক্তির পরিচয় জানতে চান বলে জানিয়েছে বিবিসি।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর জঙ্গি সংগঠন আল-কায়েদার সঙ্গে জড়িত ১৯ জঙ্গি চারটি উড়োজাহাজ ছিনতাই করে যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি জায়গায় আত্মঘাতী হামলা করেন। দুটি উড়োজাহাজ আঘাত হানে নিউইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার বা টুইন টাওয়ারে। তৃতীয় উড়োজাহাজটি আক্রমণ করে পেন্টাগনে। আর চতুর্থ বিমানটি পেনসিলভানিয়ায়। ভয়াবহ এই হামলায় প্রাণ হারায় প্রায় তিন হাজার মানুষ।


মন্তব্য